শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১১:৪২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ঢাকাস্থ গোপালগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির নতুন কমিটির শ্রদ্ধা নিবেদন নিক্সনকে ৮ সপ্তাহের আগাম জামিন নিজস্ব প্রতিবেদক বিএনপির মত ইতিহাসে এমন ব্যর্থ দল আর কেউ দেখেনি-ওবায়দুল কাদের সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে অন্য নারী দিয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা! ধামরাইয়ে বালিয়া ইউনিয়নে শেখ রাসেল এর জন্মদিন পালিত ফরিদপুরে প্রতারক হাচান কবিরাজের কান্ড! (পর্ব-১) নাগরপু‌রে পাকু‌টিয়া ইউ‌নিয়‌নে, নারী ধর্ষন ও নির্যাতন বি‌রোধী বিট পু‌লি‌শিং সমা‌বেশ অনু‌ষ্ঠিত ধামরাই‌য়ে বা‌লিয়ায় বিট পু‌লি‌শিং এর মত‌বি‌নিময় সভা অনু‌ষ্ঠিত আশুলিয়ায় সাংবাদিককে মারধরের অভিযোগ নওগাঁ-৬ উপ-নির্বাচন: বিপুল ব্যবধানে আ.লীগ প্রার্থীর জয়
মৌ চাষ করে সাবলম্বী শ্রীপুরের মোহাম্মদ আলী

মৌ চাষ করে সাবলম্বী শ্রীপুরের মোহাম্মদ আলী

এস এম জহিরুল ইসলাম,শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধি

গাজীপুরের শ্রীপুরে মৌ চাষ করে সাবলম্বী শেখ মোহাম্মদ আলী।তার বাড়ি উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের মুলাইদ গ্রামে। তিনি পেশায় মৌচাষী। তিনি ২০০৬ সালে মৌমাছি নিয়ে কাজ শুরু করেন । তখন সরিষা ক্ষেতে মৌচাষের চেষ্টা করেন। সরিষা ক্ষেতে মৌচাষের কথা ছড়িয়ে পড়লে তাকে নিয়ে ঠ্রাট্ট-বিদ্রƒপ করত গ্রামের লোকজন। ফসল নষ্ট হয়ে যাবে, এ কারনে অনেক কৃষক তাদের জমিতে মধুর বাক্স বসাতে দিতেন না। এ প্রসঙ্গে শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, অনেকে বাক্স নিয়ে টানা-ঁেহচরা করতেন। কেউ কেউ বাক্স বসানোর জন্য টাকা দাবী করতেন। ধীরে ধীরে পাল্টাতে থাকে সেইসব দুঃসহ দিন। বাংলাদেশের সরিষা ক্ষেত মৌচাষের জন্য উপযোগী। এটা উপলব্ধি করতে শুরু করেন অনেক কৃষক ।
এভাবে চলতে থাকে কয়েক বছর। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) থেকে সাত দিনের প্রশিক্ষন নিয়ে প্রথমে তিনটি মৌবাক্স ক্রয় করেন।কিছুদিন পর তিনটি মৌবাক্সের মৌমাছি মারা যায়। তারপর অবার সাতটি সেরেনা মৌমাছি (মৌবাক্স )ক্রয় করেন ।পরে লাভের মুখ দেখতে থাকেন।তিনি এপর্যন্ত পাঁচ হাজরের ও অধিক মৌমাছি সহ মৌবাক্স বিক্রি করেছেন। সে মৌচাষের উপর আরো অনেক প্রশিক্ষন নেন। গত বছরে সমবায়ের মাধ্যমে মধু বিক্রির জন্য বি এস টি আই র অনুমোদন পান।
তিনি জানান,বাংলাদেশে কয়েক ধরনের মৌমাছি চাষ হয়। এর মধ্যে ডরসেটা জাতের মৌমাছি ঘরের কোনায় বা খোলা জায়গায় চাষ করা যায়। বর্তমানে চাষ উপযোগী তিন প্রজাতির মৌমাছি রয়েছে-মেলিফেরা, ফ্লোরিয়া ও সেরেনা ।
আশপাশের আবাদি জমির তুলনায় মধুর বাক্স বসানো জমিতে সরিষার ফলন ভালো হয়েছে। সেসব জমিতে প্রায় ২০-৩০ শতাংশ বেশি ফলন হয়েছে। শুধু তাই নয়, মৌমাছিরা ফুলে পরাগায়ন ঘটিয়ে নানা ধরনের রবি শস্যেরও ফলন বৃদ্বি করছে। এমন চিত্র দেখে এলাকার সাধারন কৃষক মোহাম্মদ আলীকে সহায়তা করছেন।আবার কেউ কেউ তার মতো পথও বেছে নিয়েছেন মৌচাষে সফলতার মুখ দেখে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের যুবকরা বানিজ্যিকভাবে এ পেশায় আসার আগ্রহ দেখাচ্ছেন।
বর্তমানে মোহম্মদ আলীর ৯০টির বেশি মৌবাক্স রয়েছে। প্রতি বাক্স থেকে সপ্তাহে ১৫ থেকে ২০ কেজি কেজি মধু সংগ্রহ করা যায়। সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহের উত্তম সময় অগ্রহায়ণ ও পৌষ মাস। এ দুই মাসে অধিক পরিমানে মধু সংগ্রহ করা যায়। তবে সরিষা ফুলের মধু অধিক ঠান্ডায় জমাট বেঁধে যায়। এজন্য সরিষার মধুতে থাকা গ্লুকোজকে দায়ী করা হয়। তিনি লিচু, কালিজিরা ও কেওড়া ফুল থেকে ও মধু সংগ্রহ করে থাকেন।
বর্তমানে এক কেজি সরিষার মধুর দাম ৪০০ থেকে ৬০০ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। লিচু ফুলের মধু প্রতি কেজি ৬০০ টাকা। কালিজিরার মধু প্রতি কেজি ১ হাজার ২০০ টাকা। কেওড়া ফুলের মধু প্রতি কেজি ৬০০ টাকা। সব খরচ বাদে এ বছর আট থেকে-দশ লাখ টাকা আয়ের আশা করছেন তিনি। বর্তমানে করোনার এই সংকটময় সময়ে ও মধুর চাহিদা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে বলে জানান এই মৌচাষী।

মৌচাষের মাধ্যমে তার তার জীবন ও পরিবারের অভাব দূর হয়েছে। নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পারছেন সামাজিক কর্মকান্ডেও। তিনি বর্তমানে শ্রীপুর উপজেলা মৌচাষি সমবায় সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি জানান, মৌচাষে তেমন বড় অঙ্কের টাকার প্রয়োজন হয় না, অল্প পুঁজিতে, স্বল্প পরিসরে এ ব্যবসা শুরু করা যায়।
শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ এস এম মূয়ীদুল হাসান জানান, শ্রীপুর অঞ্চলের মধু বিষমুক্ত ও নির্ভেজাল। এ অঞ্চলে মৌমাছিরা ফুলে পরাগায়ন ঘটায়। ফলে লিচু সহ রবি শস্যের ফলন দিন দিন বাড়ছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved 2018 khoborbangladesh.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com