রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবীতে ভাঙ্গায় স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি ও মানববন্ধন হযরত শাহ কবির (রহঃ) ৪০০ বছরেও অমলিন চুয়াডাঙ্গার গবেষক আমানতের নতুন কিছু মিরপুরের সাবেক এমপি মরহুম আলহাজ্ব হারুন-অর-রশিদ মোল্লার ২৮তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত চেয়ারম্যানের উপর হামলা : জেলাজুড়ে বাস বন্ধ করে অভিযুক্তদের গ্রেফতার দাবি বরগুনায় যুবলীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে গুরুতর জখম সাভার হেমায়েতপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক যুবক নিহত মিরপুর প্রেসক্লাবে দিনব্যাপী উন্নয়ন সাংবাদিকতার কর্মশালা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের শ্রদ্ধা নিবেদন 
বরগুনার বামনায় বেপরোয়া কিশোর গ্যাং

বরগুনার বামনায় বেপরোয়া কিশোর গ্যাং

আলমগীর হোসেন শুভ
বরগুনার বামনা উপজেলার এক আতঙ্কের জনপদ ডৌয়াতলা ইউনিয়ন। এমন কোন মাস নেই -এই ইউনিয়নের কোথাও কোন অঘটন না ঘটে। এখানে ঘটে যাওয়া সকল অঘটনের মূলে রয়েছে কিশোর গ্যাং গ্রুপের সদস্যরা। ফিটিং, মারপিট, ছিনতাই, জমি দখল, হুমকি, ইভটিজিং এমন কোন কাজ নেই যার সঙ্গে এই ইউনিয়নের কিশোর গ্যাং গ্রুপের সদস্যরা জড়িত থাকে না।
এলাকার একাধিক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এই ইউনিয়নে বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইতুল ইসলাম লিটু মৃধা ও ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের আলাদা আলাদা দুটি গ্রুপ রয়েছে। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান। তিনি বলেছেন, যারা এইসব ঘটনা ঘটাচ্ছে তাদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের সহায়তা চেয়েছেন ।
বেশ কিছু দিন ধরে ওই দুই কিশোর গ্যাং গ্রুপ পরষ্পরবিরোধী অবস্থানে রয়েছে। উভয় গ্রুপেই রয়েছে ৩০-৪০ সদস্যের বাহিনী । এদের একাংশ মাদক, ইভিটিজিংসহ বিভিন্ন ধরনের অপকর্মে জড়িত।
এই কিশোর অপরাধীরা বিভিন্ন সময়ে গুরুতর অপরাধ করেও ওই নেতাদের আশির্বাদে পার পেয়ে যায়। ফলে এখানে দিন দিন বেড়ে চলেছে কিশোর অপরাধীর সংখ্যা।
গত রবিবার সন্ধ্যায় ডৌয়াতলা ইউনিয়ন পরিষদের দক্ষিণ পাশে  এক গ্রুপের কিশোর গ্যাং লিডার মো. অলি আহম্মেদ নামে এক বখাটে বামনা উপজেলা ফার্মাসিস্ট রিপ্রেনজেটিভ অ্যাসোসিয়েশন (ফারিয়া) সভাপতি মো. মেজবাহ উদ্দিনের চলন্ত মোটরসাইকেলে ছুরি নিক্ষেপ করে। পরে ওই ছুরিটি  ওই বিক্রয় প্রতিনিধি নিজেই ফেলেছে দাবি করে তার কাছে থাকা নিজের মোটরসাইকেলের চাবি ছিনিয়ে নেয়। কিছুক্ষণের মধ্যে প্রায় ২০-২৫ জন গ্যাং সদস্য এসে তাকে ঘিরে ফেলে। এসময় মহাসড়ক দিয়ে যাচ্ছিলেন বামনা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সাব্বির ফেরদৌস তালুকদার। তাকে দেখে ওই বিক্রয় প্রতিনিধি চিৎকার দিলে তিনি ঘটনাস্থলে এলে এই গ্যাং গ্রুপের সদস্যরা চাবি ফেরত দিয়ে পালিয়ে যায়।
স্থানীয়রা জানান, কিশোর গ্যাং লিডার অলি আহম্মেদ কয়েকবার ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে। তার শ্বশুর মো. সগির খান কুখ্যাত মাদক বিক্রেতা, এক ডাকাতি মামলায় জেল হাজতে রয়েছে।
ঘটনার শিকার ফারিয়া সভাপতি মো. মেজবাহ উদ্দিন জানান, তার মোটরসাইকেলে ছুরি নিক্ষেপ করে তাকে ফিটিং করার চেষ্টা চালাচ্ছিল ওই গ্যাং লিডার অলি আহম্মেদ। অলি প্রথমে তার মোটরসাইকেল থেকে কেন ছুরিটি পড়লো- এ বিষয়ে চার্জ করে এবং তার হাতে থাকা মোটরসাইকেলের চাবি ছিনিয়ে নেয়। ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে উজ্জল মৃধাসহ আরো ২০-২৫জন সেখানে এসে হাজির হয় ও তাকে ঘিরে ফেলে। সময়মতো উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওই পথ দিয়ে না গেলে তার সঙ্গে থাকা টাকা পয়সা এই গ্যাংবাহিনী হাতিয়ে নিয়ে যেতো।
বামনা উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সাব্বির ফেরদৌস তালুকদার বলেন, আমি বোনের বাড়ি থেকে তখন ফিরছিলাম। মেজবাহর ডাকে আমি সেখানে গিয়ে দেখি কিছু উঠতি বয়সী কিশোর ছেলে মেজবাহকে ঘিরে রেখেছে। আমি ধমক দেওয়ার পরে তারা চলে যায়। তবে তাদের আমি চিনতে পারি নাই। পরে মেজবাহকে নিয়ে আমি বামনায় চলে আসি।
ঘটনাটি দৈনিক কালের কন্ঠ বামনা প্রতিনিধি মনোতোষ হাওলাদার নিজের ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট দিলে ওই কিশোর গ্যাং লিডার অলি আহম্মেদ তার স্ত্রীর সৃষ্টি খান নামে ফেসবুক আইডি থেকে ম্যাসেঞ্জারে কল করে ডৌয়াতলায় পেলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। এ ঘটনায় আজ সোমবার দুপরে বামনা থানায় ওই সাংবাদিক প্রাণ নাশের অভিযোগে একটি সাধারণ ডায়েরি করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
ডৌয়াতলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান বলেন, আমাদের ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির ছেলের নেতৃত্বে এই অপ্রীতিকর ঘটনাটি ঘটেছে। আমরা তাদেরকে এই ঘটনার বিচার করতে বলেছি। ভবিষ্যতে যেন এই ধরনের ঘটনা না ঘটে সেজন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।  গত রবিবার রাতে ঔষধ কম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধির সঙ্গে কিশোর গ্যাং সদস্যরা যে ঘটনা ঘটিয়েছে, সেটা আমরা কেউ কল্পনাও করতে পারিনি। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত গ্যাং গ্রুপ লিডারের স্ত্রী ঘটনার পর মোবাইলে কল দিয়ে আমার সঙ্গে অকথ্য ভাষায় কথা বলেছে। এখনই ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে এ ইউনিয়নে বড় কোন ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে।  বামনা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আমি রাতেই ঘটনাটি জেনেছি। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইতুল ইসলাম লিটু মৃধা রবিবারের ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে নিষ্পত্তির জন্য আশ্বাস দিয়েছেন। যদি সেভাবে সুরাহা না হয় তাহলে ওই গ্যাং গ্রুপের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইতুল ইসলাম লিটু বলেন, ডৌয়াতলায় কোন গ্যাং গ্রুপের এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটতে দেওয়া যাবে না। এই গ্রুপগুলো নির্মূল করতে হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved 2018 khoborbangladesh.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com