ঢাকা ০৬:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

গাইবান্ধায় ৪২ হাজার ৫০২ টন ধান ও চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি

চলতি বোরো মৌসুমে গাইবান্ধায় কৃষক ও মিলারদের কাছ ৪২ হাজার ৫০২ টন ধান ও চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জেলা খাদ্য বিভাগ। গাইবান্ধা জেলা খাদ্য বিভাগ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। ইতোমধ্যে গত ১ মে শনিবার থেকে ধান-চাল কেনা শুরু করা হয়েছে। যা আগামী ১৬ আগস্ট পর্যন্ত চলমান থাকবে। গাইবান্ধার সাত উপজেলায় ১২টি ক্রয় কেন্দ্রের মাধ্যমে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে ১৮ হাজার ৩০২ টন ধান ও মিলারদের কাছ থেকে ২৪ হাজার ২শত টন সিদ্ধ চাল ৪০ টাকা দরে কেনা হবে। এর আগে কৃষকরা অনলাইনে অ্যাপের মাধ্যমে ধান বিক্রির জন্য নিবন্ধন করেছে। লটারির মাধ্যমে প্রত্যেক উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ধান-চাল ক্রয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গাইবান্ধা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রিয়াজুর রহমান বলেন, ধান ক্রয় লক্ষ্যমাত্রায় এ পর্যন্ত ১৫ টন অর্জিত হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

গাইবান্ধায় ৪২ হাজার ৫০২ টন ধান ও চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা

আপডেট টাইম : ১০:৩৭:৩৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ মে ২০২১

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি

চলতি বোরো মৌসুমে গাইবান্ধায় কৃষক ও মিলারদের কাছ ৪২ হাজার ৫০২ টন ধান ও চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জেলা খাদ্য বিভাগ। গাইবান্ধা জেলা খাদ্য বিভাগ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। ইতোমধ্যে গত ১ মে শনিবার থেকে ধান-চাল কেনা শুরু করা হয়েছে। যা আগামী ১৬ আগস্ট পর্যন্ত চলমান থাকবে। গাইবান্ধার সাত উপজেলায় ১২টি ক্রয় কেন্দ্রের মাধ্যমে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে ১৮ হাজার ৩০২ টন ধান ও মিলারদের কাছ থেকে ২৪ হাজার ২শত টন সিদ্ধ চাল ৪০ টাকা দরে কেনা হবে। এর আগে কৃষকরা অনলাইনে অ্যাপের মাধ্যমে ধান বিক্রির জন্য নিবন্ধন করেছে। লটারির মাধ্যমে প্রত্যেক উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ধান-চাল ক্রয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গাইবান্ধা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রিয়াজুর রহমান বলেন, ধান ক্রয় লক্ষ্যমাত্রায় এ পর্যন্ত ১৫ টন অর্জিত হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।