শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বন্ড সুবিধায় আমদানি করা কাপড় ও সুতা বানের পানির মতো ঢুকছে খোলা বাজারে

বন্ড সুবিধায় আমদানি করা কাপড় ও সুতা বানের পানির মতো ঢুকছে খোলা বাজারে

নিজস্ব প্রতিবেদক
বন্ড ব্যাবসায় শত শত কোটি টাকার দুর্নীতি হচ্ছে। বন্ড ব্যাবসায় দূর্নীতির কারনে দেশের অর্থনীতি দিন দিন রসাতলে অথচ শুল্কমুক্ত সুবিধায় আনা এসব কাপড় ও সুতা রপ্তানিমুখী গার্মেন্টস-এ ব্যবহারের কথা। এসব বন্ড সুবিধায় আনা প্রতিদিন শত শত কোটি টাকার সুতা ও কাপড় যাচ্ছে দেশের রাজধানীর লোকাল বাজার ইসলামপুর গুলশান আরা সিটি, সদরঘাট বিক্রমপুর গার্ডেন সিটি, কালীগঞ্জের টকিও টাওয়ার, নরসিংদীর মাদবধী, নারায়নগঞ্জ এবং চট্টগ্রামসহ আরো বিভিন্ন জেলায় এতে কোটি কোটি টাকার সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। এর মধ্যে অভিযোগ উঠছে নোমান গ্রুপের নামে। নোমান গ্রুপের এ অসাধু ব্যাবসায়ীর বিভিন্ন দুর্নীতির বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থানার হারুন অর রশিদ নামক এক ব্যক্তি দুর্নীতি দমন কমিশনে ও এন বি আরে অভিযোগ দেন। উল্টো অভিযোগকারী হারুনের বাড়ীতে কাপনের কাপড় ও চিরকুট পাঠিয়ে এবং আরো বিভিন্নভাবে হত্যার হুমকি দিচ্ছে এ বিষয়ে তিনি লোহাগাড়া থানা একটি সাধারন ডায়েরী করেন যার নং ১২২৮ (২৭/৮/২০২১) দীর্ঘ অনুসন্ধান করে জানান নোমান গ্রুপ একাধিক অঙ্গ প্রতিষ্ঠানে প্রতিমাসে বিদেশ হইতে হাজার হাজার কোটি টাকার সুতা,তুলা ও কাপড় বন্ড সুবিধায় আমদানি করে থাকে। বিনা শুল্কে বন্ড সুবিধায় আমদানিকৃত সুতা,তুলা ও কাপড় অবৈধভাবে অপসারনের মাধ্যমে উল্ল্যেখযোগ্যভাবে লোকাল ফ্যক্টরী যথাক্রমে-ইসমাঈল আঞ্জুমান আরা ফেব্রিক্স, জারবা টেক্সটাইল,নাইস প্রসেসিং ট্যু, সাদসান টেক্সটাইল, ইসমাঈল টেক্সটাইল এবং সুফিয়া ফেব্রিক্স এর মাধ্যমে খোলা বাজারে বিক্রি করে দিচ্ছে বলে জানা যায়। নোমান গ্রুপের বন্ড ফ্যাক্টরি জাবের এন্ড জুবায়ের, নোমান ফ্যাশন, জাবের জুবায়ের ফ্যাশন, জাবের জুবায়ের হোম, নাইস ডেনিম, নোমান উইভিং, নোমান হোম টেক্সটাইল, ইসমাঈল স্প্রিং, তালহা টেক্সপ্রো, নোমান কম্পোজিট,নোমান টেরিটাওয়েল,জাবের স্প্রিং,জোবায়ের স্প্রিং,তালহা স্প্রিং,নোমান স্প্রিং, তালহা ফেব্রিক্স, নাইস স্পানসহ আরো অনেক প্রতিষ্টানের বন্ডের সুতা ও কাপড় বিভিন্নভাবে সরাসরি মুঃ বিল্লাল হোসাইন(এজিএম পারসেইস এন্ড ওয়েস্টিজ সেইলস, নোমান গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ) এর সাক্ষরে ও চেয়ারম্যানের পুত্র আবদুল্লাহ জাবের এর তত্বাবধানে টেন্ডারের মাধ্যমে কালিগঞ্জের আনোয়ার হাজী,ইসলামপুরের গুলশান আরা সিটির জাহাঙ্গীর এন্ড ব্রাদার্স, নরসিংদীর মাধবদীর সাইফুল ইসলাম আবু হানিফসহ ঢাকা ও চট্টগ্রামের একাধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বরাবরে অবৈধভাবে বিক্রি করিয়া আসিতেছে। এরুপ বন্ডের সুতা ও কাপড় বিক্রির সময় কখনো লোকাল ফ্যাক্টরীর নামে চালান ইস্যু করে, আবার কখনো একই চালান একাধিকবার ব্যবহার করে। ব্যবসায়ীরা আরো উল্ল্যেখ করে জানান নোমান গ্রুপের প্রতিষ্ঠান টঈী পাগাড় মৌজার বন্ডের প্রতিষ্ঠান জাবের জুবাইয়ের ফ্রেব্রিক্স,জাবের জুবাইয়ের হোম,জাবের জুবাইয়ের ফ্যাশন ও নোমান ফ্যাশনের কাপড় ও সুতা কৌশলে নোমান গ্রুপের লোকাল প্রতিষ্ঠান টঈী পাগাড় মৌজার ইসমাইল আনজুমান ফ্রেব্রিক্সে বন্ডের কাপড় ও সুতা ডুকিয়ে নামমাত্র আংশিক ভ্যাট দেখিয়ে সেখান থেকে চালান করেন । বন্ডের সুতা ও কাপড় দেশীয় বাজারে টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয় করার কারণে সরকার যেমন হাজার হাজার কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তেমনি দেশিয় শিল্প প্রতিষ্টান গুলোর জন্যও মারাত্মকভাবে ক্ষতি হচ্ছে। বন্ডের সুতা ও কাপড় ছাড়াও দেশিয় লোকাল কাপড়, সুতা এবং অন্যান্য দেশীয় ফ্রেশ অর্ডার ও ওয়েষ্টিজ মালামাল বিক্রী করলেও সেখানেও আংশিক পরিমান ভ্যাট দেখান যার কারনেও সরকার কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে জানা যায়। এই বিষয়ে নোমান গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক জনাব শহিদুল্লাহ চৌধুরীর সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি কোন ধরনের মোবাইল ফোন রিসিভ না করায় এজিএম (পারসেইস এন্ড ওয়েষ্টিজ) সেইলস এর জনাব মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন রকমের মন্তব্য করতে রাজি হয় নাই, তিনি বিষয়টা এড়িয়ে যান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved 2018 khoborbangladesh.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com