ঢাকা ০৬:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

প্রাথমিক ও গণশিক্ষার ডি.ডি ইফতেখার ভুইয়ার বিরুদ্ধে ৭৫ হাজার টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ!

স্টাফ রিপোর্টার
প্রাথমিক ও গণশিক্ষার ডিডি’র বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ নতুন কিছু না। মাসে কোটি কোটি টাকার বরাদ্দের টাকার কোন কাজ হয়না এমন অভিযোগ আছে । কিন্তু এবার রাজধানীর ডেমরা থানাধীন শেখদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২০২১ সমাপনী পরীক্ষার টাকা উত্তোলনের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক সহ ৩জন শিক্ষককে সাসপেন্ড করেন । অভিযোগে জানা যায় শাস্তি না দেওয়ার জন্য মোটা অংকের টাকা ঘুষ দাবী করেন। শেখ সাদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে ৭৫ হাজার টাকা নেন ডিডি ইফতেখার ভূইয়া। ঘুষের বিনিময়ে প্রধান শিক্ষককে সামান্যা শাস্তি দিয়ে প্রধান শিক্ষক আমিনুলকে আবার স্কুলে জয়নিং করালেও সহকারী ২ জন শিক্ষিকা এখনো সাসপেন্ড আছেন বলে জানা যায়। এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে জানতে চাইলে তিনি কৌশলে এড়িয়ে যান। এবং কতজন শিক্ষক সাসপেন্ড আছে জানতে চাইলে জেলা শিক্ষা অফিসার বলেন আমি এগুলো বিষয়ে আপনাকে কোন তথ্য দিতে পারবোনা, এবং আপনার কাছে কেন বলবো আমাদের বিষয় এমন কথাও বলেন জেলা শিক্ষা অফিসার আলেয়া ফেরদৌসি শিখা। তিনি বলেন কত জন আছে সাসপেন্ড এগুলো আমার জানা নেই এবং এর তথ্য আমি দিবো না আপনাকে। এতেই বোঝা যায় এই সাসপেন্ড করা এবং শাস্তি দেওয়ার বিষয়েও গণশিক্ষায় মোটামুটি একটা চাঁদাবাজি চলছে। এদিকে প্রধান শিক্ষক সমিতির একজন শিক্ষক বলেন আমাদের থানা শিক্ষা অফিসার ও জেলা শিক্ষা অফিসার এগুলো নিয়ে একটা বানিজ্যতে পরিনত করেছে। তারা হাজার অপরাধ করলেও কোন সমস্যা নেই আমরা সামন্য অপরাধ করলেই সাসপেন্ড এবং শাস্তি দেন এবং তার জন্য টাকা দাবি করেন। এবষিয়ে জানতে চাইলে ডি.ডি ইফতেখার বলেন আমি কোন টাকা নিই নাই আমি টাকা কেন নিব। তবে আমিনুল কেন আপনাকে এগুলো বললো আমি জানিনা। তবে ঘুষের বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আমিনুল বলেন আমি নিজে ডি.ডি স্যারকে ৭৫ হাজার টাকা দিয়েছি। স্যার টাকা নিয়েও আপনার কাছে মিথ্যা কথা বলছে। শুধু এখানেই শেষ নই। ডি.ডি ইফতেখার ভুইয়ার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ আছে সেই অভিযোগ তদন্ত করার জন্য তাকে ৪ মাসের ছুটি দিয়েছে বলেও জানা যায়।

ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

প্রাথমিক ও গণশিক্ষার ডি.ডি ইফতেখার ভুইয়ার বিরুদ্ধে ৭৫ হাজার টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ!

আপডেট টাইম : ০৮:২২:০৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২২

স্টাফ রিপোর্টার
প্রাথমিক ও গণশিক্ষার ডিডি’র বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ নতুন কিছু না। মাসে কোটি কোটি টাকার বরাদ্দের টাকার কোন কাজ হয়না এমন অভিযোগ আছে । কিন্তু এবার রাজধানীর ডেমরা থানাধীন শেখদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২০২১ সমাপনী পরীক্ষার টাকা উত্তোলনের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক সহ ৩জন শিক্ষককে সাসপেন্ড করেন । অভিযোগে জানা যায় শাস্তি না দেওয়ার জন্য মোটা অংকের টাকা ঘুষ দাবী করেন। শেখ সাদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে ৭৫ হাজার টাকা নেন ডিডি ইফতেখার ভূইয়া। ঘুষের বিনিময়ে প্রধান শিক্ষককে সামান্যা শাস্তি দিয়ে প্রধান শিক্ষক আমিনুলকে আবার স্কুলে জয়নিং করালেও সহকারী ২ জন শিক্ষিকা এখনো সাসপেন্ড আছেন বলে জানা যায়। এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে জানতে চাইলে তিনি কৌশলে এড়িয়ে যান। এবং কতজন শিক্ষক সাসপেন্ড আছে জানতে চাইলে জেলা শিক্ষা অফিসার বলেন আমি এগুলো বিষয়ে আপনাকে কোন তথ্য দিতে পারবোনা, এবং আপনার কাছে কেন বলবো আমাদের বিষয় এমন কথাও বলেন জেলা শিক্ষা অফিসার আলেয়া ফেরদৌসি শিখা। তিনি বলেন কত জন আছে সাসপেন্ড এগুলো আমার জানা নেই এবং এর তথ্য আমি দিবো না আপনাকে। এতেই বোঝা যায় এই সাসপেন্ড করা এবং শাস্তি দেওয়ার বিষয়েও গণশিক্ষায় মোটামুটি একটা চাঁদাবাজি চলছে। এদিকে প্রধান শিক্ষক সমিতির একজন শিক্ষক বলেন আমাদের থানা শিক্ষা অফিসার ও জেলা শিক্ষা অফিসার এগুলো নিয়ে একটা বানিজ্যতে পরিনত করেছে। তারা হাজার অপরাধ করলেও কোন সমস্যা নেই আমরা সামন্য অপরাধ করলেই সাসপেন্ড এবং শাস্তি দেন এবং তার জন্য টাকা দাবি করেন। এবষিয়ে জানতে চাইলে ডি.ডি ইফতেখার বলেন আমি কোন টাকা নিই নাই আমি টাকা কেন নিব। তবে আমিনুল কেন আপনাকে এগুলো বললো আমি জানিনা। তবে ঘুষের বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আমিনুল বলেন আমি নিজে ডি.ডি স্যারকে ৭৫ হাজার টাকা দিয়েছি। স্যার টাকা নিয়েও আপনার কাছে মিথ্যা কথা বলছে। শুধু এখানেই শেষ নই। ডি.ডি ইফতেখার ভুইয়ার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ আছে সেই অভিযোগ তদন্ত করার জন্য তাকে ৪ মাসের ছুটি দিয়েছে বলেও জানা যায়।