ঢাকা ০৬:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধরে রাখতে ১৪০ফুট লম্বা তৌরী হচ্ছে

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ভাদ্রা ইউনিয়নের কাওনহোলা গ্রামে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধরে রাখতে প্রায় ১৪০ ফুট লম্বা বাইচের নৌকা বানাচ্ছে স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠ আব্দুল কুদ্দুস। এতে ব্যাপক আনন্দিত এলাকার বাসিন্দারা। প্রতিদিনই আশেপাশের জনসাধারণ এই নৌকা বানানোর দৃশ্য একনজর দেখতে এসে ভিড় জমাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস মিশে আছে বিধায় এই নৌকা তৈরির গুরুত্ব ক্রমশ বাড়ছে। প্রায় ৭৫ বছর বয়সের বয়োজ্যেষ্ঠ মো: আব্দুল কুদ্দুসের ভাষ্যমতে, ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নাগরপুর উপজেলায় এসে যে নৌকায় উঠেছিলেন, সেই নৌকার গোলই অংশ দিয়ে তৈরি হচ্ছে এই বাইচ নৌকা। তাই স্মৃতি রক্ষার্থে বঙ্গবন্ধুর প্রতি উৎসর্গ করা হবে এই নৌকাকে। এছাড়াও নৌকার নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু দুরন্ত বিজয় তরী।এদিকে নৌকার কারিগর লতিফ জানায়, আমরা নৌকার কারিগর হিসেবে অনেক আনন্দিত। অনেক জায়গা থেকে জনগণ এই নৌকা বানানোর কাজ দেখতে আসে, ভালোই লাগে আমাদের।বাইচ নৌকার মালিক মো: আব্দুল কুদ্দুস বলেন, বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে ও এলাকাবাসীর আনন্দের জন্যই এই নৌকা বানানো হচ্ছে। ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু নাগরপুরে এসে যে নৌকায় উঠেছেন সেটির গোলই ব্যবহার করে এই বাইচ নৌকা বানানো হচ্ছে।বাবার শখ পূরণের চেষ্টায় ছেলে শাহাদত হোসেন জানায়, বাবার ইচ্ছা আনন্দের জন্য এই নৌকা আমরা এলাকাবাসী আনন্দ নিয়ে বানাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর বিষয়টি বাবার থেকেই শুনেছি আমরা।ভাদ্রা ইউনিয়ন ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য (মেম্বার) লুৎফর রহমান বাবুল জানায়, আমি অবগত আছি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিতে বাইচ নৌকা বানানো হচ্ছে। এলাকাবাসী উৎসাহের সাথে নৌকা বানানোর বিষয়টি উপভোগ করছে।নাগরপুর উপজেলা সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সুজায়েত হোসেন বলেন, কাওনহোলা এলাকার যে বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে বাইচ নৌকা বানাচ্ছে তাকে ধন্যবাদ জানাই। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি রক্ষার্থে তিনি যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটি অবশ্যই প্রশংসনীয়।উল্লেখ্য, নাগরপুর উপজেলায় বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন এলাকায় নৌকা বাইচ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু দুরন্ত বিজয় তরী এমন আয়োজনে অংশগ্রহণ করবে বলে আশাবাদী মালিকপক্ষ।
ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধরে রাখতে ১৪০ফুট লম্বা তৌরী হচ্ছে

আপডেট টাইম : ০১:৪১:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ভাদ্রা ইউনিয়নের কাওনহোলা গ্রামে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধরে রাখতে প্রায় ১৪০ ফুট লম্বা বাইচের নৌকা বানাচ্ছে স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠ আব্দুল কুদ্দুস। এতে ব্যাপক আনন্দিত এলাকার বাসিন্দারা। প্রতিদিনই আশেপাশের জনসাধারণ এই নৌকা বানানোর দৃশ্য একনজর দেখতে এসে ভিড় জমাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস মিশে আছে বিধায় এই নৌকা তৈরির গুরুত্ব ক্রমশ বাড়ছে। প্রায় ৭৫ বছর বয়সের বয়োজ্যেষ্ঠ মো: আব্দুল কুদ্দুসের ভাষ্যমতে, ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নাগরপুর উপজেলায় এসে যে নৌকায় উঠেছিলেন, সেই নৌকার গোলই অংশ দিয়ে তৈরি হচ্ছে এই বাইচ নৌকা। তাই স্মৃতি রক্ষার্থে বঙ্গবন্ধুর প্রতি উৎসর্গ করা হবে এই নৌকাকে। এছাড়াও নৌকার নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু দুরন্ত বিজয় তরী।এদিকে নৌকার কারিগর লতিফ জানায়, আমরা নৌকার কারিগর হিসেবে অনেক আনন্দিত। অনেক জায়গা থেকে জনগণ এই নৌকা বানানোর কাজ দেখতে আসে, ভালোই লাগে আমাদের।বাইচ নৌকার মালিক মো: আব্দুল কুদ্দুস বলেন, বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে ও এলাকাবাসীর আনন্দের জন্যই এই নৌকা বানানো হচ্ছে। ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু নাগরপুরে এসে যে নৌকায় উঠেছেন সেটির গোলই ব্যবহার করে এই বাইচ নৌকা বানানো হচ্ছে।বাবার শখ পূরণের চেষ্টায় ছেলে শাহাদত হোসেন জানায়, বাবার ইচ্ছা আনন্দের জন্য এই নৌকা আমরা এলাকাবাসী আনন্দ নিয়ে বানাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর বিষয়টি বাবার থেকেই শুনেছি আমরা।ভাদ্রা ইউনিয়ন ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য (মেম্বার) লুৎফর রহমান বাবুল জানায়, আমি অবগত আছি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিতে বাইচ নৌকা বানানো হচ্ছে। এলাকাবাসী উৎসাহের সাথে নৌকা বানানোর বিষয়টি উপভোগ করছে।নাগরপুর উপজেলা সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সুজায়েত হোসেন বলেন, কাওনহোলা এলাকার যে বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে বাইচ নৌকা বানাচ্ছে তাকে ধন্যবাদ জানাই। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি রক্ষার্থে তিনি যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটি অবশ্যই প্রশংসনীয়।উল্লেখ্য, নাগরপুর উপজেলায় বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন এলাকায় নৌকা বাইচ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু দুরন্ত বিজয় তরী এমন আয়োজনে অংশগ্রহণ করবে বলে আশাবাদী মালিকপক্ষ।