ঢাকা ০৪:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
মিরপুরে ৬৫০ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার মির্জাগঞ্জে ইসি সচিব’র সাথে মতবিনিময় সভা তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ পটুয়াখালীর বিভিন্ন উপজেলা তথা বাউফল, বাড়ছে বিভিন্ন রোগবালাই নওগাঁয় সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী-স্ত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু মৌজাভেদে আবারও কমলো জমির নিবন্ধন খরচ রাজউকের নতুন চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সিদ্দিকুর রহমান গোপীবাগে ৩৫ কোটি টাকার খাস জমি উদ্ধার বগুড়ায় আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব এর উদ্যোগে শতাধিক পরিবারের মাঝে ঈদ-সামগ্রী বিতরণ ব্যাংক ডাকাতিতে ব্যবহৃত গাড়িসহ কেএনএফের ৪ সদস্য গ্রেপ্তার ছাতিয়ান গ্রাম ইউনিয়ন পরিষদে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ভিজিএফ’র  চাল বিতরন

শিশু জিহাদের চিকিৎসায় এসপি ও ওসির পাশাপাশি এগিয়ে এলেন ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন

নাদিম আহমেদ অনিক
‘বাঁচতে চায় ৩ বছরের অবুঝ শিশু জিহাদ’ শিরোনামে জাতীয় দৈনিক খবর বাংলাদেশ’ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর প্রতিবন্ধি সুমনের অসুস্থ্য শিশু সন্তান জিহাদের চিকিৎসায় নওগাঁর পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া, বিপিএম ও নওগাঁ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল সহ অন্যান্যদের পাশাপাশি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন। ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন এর প্রচেষ্টায় ইতোমধ্যে চিকিৎসা বাবদ শিশুটির বাবা প্রতিবন্ধী সুমন এর হাতে (১২এপ্রিল) মঙ্গলবার নগদ ৫ হাজার টাকা হস্তান্তর করা হয়েছে। এবং নওগাঁ জেলা সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে আরও ৫০ হাজার টাকা প্রদানের লক্ষে তার পক্ষ থেকে সব ধরণের প্রচেষ্টা অব্যহত থাকবে বলে তিনি আশ্বাস প্রদান করেছেন। হার্টের মাঝে ছিদ্র নিয়ে জীবন সংগ্রামে বেঁচে থাকা নওগাঁর শিশু জিহাদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন ২ লাখ টাকা। অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেও একসঙ্গে এতগুলো টাকা জোগার করতে যখন ব্যর্থ, ঠিক তখন আর্থিক সহযোগীতায় এগিয়ে আসেন নওগাঁর পুলিশ সুপার- প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া,বিপিএম ও নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল এর পাশাপাশি শিশুটির সুস্থ্যতা কামনায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিলেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার। উল্লেখ্য, নওগাঁ জেলা সদরের ৯নং চন্ডিপুর ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের ৬নং ওয়ার্ডের (সরকার পাড়া) বাসিন্দা প্রতিবন্ধী সুমন সরদার এর স্ত্রী জিহাদের মা মোছা: তানজিলা বানু হঠাৎ লক্ষ করে শিশু জিহাদ এর বুক উঁচু ও কিছুটা প্রশস্ত। চিন্তায় পরে যায় ৩সন্তানের বাবা প্রতিবন্ধী রিকশা চালক সুমন সরদার। পরে শিশু জিহাদকে নওগাঁয় শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্টারের কাছে নিয়ে গেলে প্রাথমিকভাবে তিনি ধারনা করেন শিশুটির হার্টের গুরুত্বর সমস্যা, এক্ষেত্রে তিনি বেশ কিছু পরিক্ষার জন্য পাশ্ববর্তী জেলা বগুড়ার পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে জিহাদের বাবা রিকশা চালক প্রতিবন্ধী সুমন স্থানীয়দের সহযোগিতায় শিশুটির বিভিন্ন পরিক্ষার ব্যবস্থা করে জানতে পারে তার হার্টে ছিদ্রের সৃষ্টি হয়েছে। দিশেহাড়া হয়ে পরে পরিবারটি। পরবর্তীতে নিজের রিকশা বিক্রয় করে শিশুটির চিকিৎসা চালাতে শুরু করে প্রতিবন্ধী সুমন। কিছুটা লাভ হলেও পরবর্তীতে তার জীবন রক্ষার্থে হার্ট অপারেশন ছাড়া উপায় নেই বলে জানান শিশুটির চিকিৎসক। যার চিকিৎসা বাবদ প্রায় ২ লাখ টাকার প্রয়োজন। অবুঝ এ শিশুটির জীবন বাঁচাতে নিরুপায় হয়ে পরে পরিবারটি। তাই সমাজের উচ্চবিত্ত, ক্ষমতাধর ও সচেতন মহলের প্রতি সাহায্যের আকুল আবেদন জানান শিশু জিহাদ এর বাবা প্রতিবন্ধী সুমন সরদার। নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মির্জা ইমাম উদ্দিন বলেন, প্রতিটি শিশুই আমাদের আগামি দিনের সম্ভাবনার বার্তা। তাদের সুরক্ষিত রাখা সকলের দায়িত্ব। অসুস্থ্য শিশু জিহাদের সুস্থ্যতা কামনা করছি, তার জন্য আমার পক্ষ থেকে সহযোগীতা যতটুকু সম্ভব থাকবে। এছাড়াও নওগাঁ জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে কথা বলা হয়েছে, আশা করছি তাদের থেকে সহযোগীতা পাওয়া যাবে। শিশু জিহাদের বাবা জানান, আমার সন্তানের চিকিৎসার জন্য এসপি স্যার, ওসি স্যার সহ অনেকে সহযোগীতা করেছে, গত মঙ্গলবারে ইউএনও স্যারের সহযোগীতা পেয়েছি। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। দৈনিক খবর বাংলাদেশ এর সবাইকে ধন্যবাদ আমার এ অসময়ে পাশে থাকার জন্য।

ট্যাগস

মিরপুরে ৬৫০ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার

শিশু জিহাদের চিকিৎসায় এসপি ও ওসির পাশাপাশি এগিয়ে এলেন ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন

আপডেট টাইম : ০৬:১৭:৫২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ এপ্রিল ২০২২

নাদিম আহমেদ অনিক
‘বাঁচতে চায় ৩ বছরের অবুঝ শিশু জিহাদ’ শিরোনামে জাতীয় দৈনিক খবর বাংলাদেশ’ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর প্রতিবন্ধি সুমনের অসুস্থ্য শিশু সন্তান জিহাদের চিকিৎসায় নওগাঁর পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া, বিপিএম ও নওগাঁ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল সহ অন্যান্যদের পাশাপাশি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন। ইউএনও মির্জা ইমাম উদ্দিন এর প্রচেষ্টায় ইতোমধ্যে চিকিৎসা বাবদ শিশুটির বাবা প্রতিবন্ধী সুমন এর হাতে (১২এপ্রিল) মঙ্গলবার নগদ ৫ হাজার টাকা হস্তান্তর করা হয়েছে। এবং নওগাঁ জেলা সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে আরও ৫০ হাজার টাকা প্রদানের লক্ষে তার পক্ষ থেকে সব ধরণের প্রচেষ্টা অব্যহত থাকবে বলে তিনি আশ্বাস প্রদান করেছেন। হার্টের মাঝে ছিদ্র নিয়ে জীবন সংগ্রামে বেঁচে থাকা নওগাঁর শিশু জিহাদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন ২ লাখ টাকা। অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেও একসঙ্গে এতগুলো টাকা জোগার করতে যখন ব্যর্থ, ঠিক তখন আর্থিক সহযোগীতায় এগিয়ে আসেন নওগাঁর পুলিশ সুপার- প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া,বিপিএম ও নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল এর পাশাপাশি শিশুটির সুস্থ্যতা কামনায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিলেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার। উল্লেখ্য, নওগাঁ জেলা সদরের ৯নং চন্ডিপুর ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের ৬নং ওয়ার্ডের (সরকার পাড়া) বাসিন্দা প্রতিবন্ধী সুমন সরদার এর স্ত্রী জিহাদের মা মোছা: তানজিলা বানু হঠাৎ লক্ষ করে শিশু জিহাদ এর বুক উঁচু ও কিছুটা প্রশস্ত। চিন্তায় পরে যায় ৩সন্তানের বাবা প্রতিবন্ধী রিকশা চালক সুমন সরদার। পরে শিশু জিহাদকে নওগাঁয় শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্টারের কাছে নিয়ে গেলে প্রাথমিকভাবে তিনি ধারনা করেন শিশুটির হার্টের গুরুত্বর সমস্যা, এক্ষেত্রে তিনি বেশ কিছু পরিক্ষার জন্য পাশ্ববর্তী জেলা বগুড়ার পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে জিহাদের বাবা রিকশা চালক প্রতিবন্ধী সুমন স্থানীয়দের সহযোগিতায় শিশুটির বিভিন্ন পরিক্ষার ব্যবস্থা করে জানতে পারে তার হার্টে ছিদ্রের সৃষ্টি হয়েছে। দিশেহাড়া হয়ে পরে পরিবারটি। পরবর্তীতে নিজের রিকশা বিক্রয় করে শিশুটির চিকিৎসা চালাতে শুরু করে প্রতিবন্ধী সুমন। কিছুটা লাভ হলেও পরবর্তীতে তার জীবন রক্ষার্থে হার্ট অপারেশন ছাড়া উপায় নেই বলে জানান শিশুটির চিকিৎসক। যার চিকিৎসা বাবদ প্রায় ২ লাখ টাকার প্রয়োজন। অবুঝ এ শিশুটির জীবন বাঁচাতে নিরুপায় হয়ে পরে পরিবারটি। তাই সমাজের উচ্চবিত্ত, ক্ষমতাধর ও সচেতন মহলের প্রতি সাহায্যের আকুল আবেদন জানান শিশু জিহাদ এর বাবা প্রতিবন্ধী সুমন সরদার। নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মির্জা ইমাম উদ্দিন বলেন, প্রতিটি শিশুই আমাদের আগামি দিনের সম্ভাবনার বার্তা। তাদের সুরক্ষিত রাখা সকলের দায়িত্ব। অসুস্থ্য শিশু জিহাদের সুস্থ্যতা কামনা করছি, তার জন্য আমার পক্ষ থেকে সহযোগীতা যতটুকু সম্ভব থাকবে। এছাড়াও নওগাঁ জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে কথা বলা হয়েছে, আশা করছি তাদের থেকে সহযোগীতা পাওয়া যাবে। শিশু জিহাদের বাবা জানান, আমার সন্তানের চিকিৎসার জন্য এসপি স্যার, ওসি স্যার সহ অনেকে সহযোগীতা করেছে, গত মঙ্গলবারে ইউএনও স্যারের সহযোগীতা পেয়েছি। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। দৈনিক খবর বাংলাদেশ এর সবাইকে ধন্যবাদ আমার এ অসময়ে পাশে থাকার জন্য।