ঢাকা ১০:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
আদমদীঘিতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ: গ্রেফতার-১ মহম্মদপুরে হত্যার মামলার আসামি জামিনে এসে বাদিকে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি, পরে মারধর আ.লীগ নেতার হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় আইসক্রিম ফাক্টরি মালিক কালিহাতীতে লিঙ্গ কাটার অভিযোগ স্ত্রী’র বিরুদ্ধে ফিটনেস বিহীন নৌযানে সয়লাব সদরঘাট,নেই পর্যাপ্ত দক্ষ নাবিক! ৫০ কোটি টাকার মামলা থেকে বাঁচতে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার পাল্টা মামলা! ফরিদপুরে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় তোলপাড় রশুনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের নব সভাপতি হলেন আবু সাঈদ মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মাগুরার হৃদয়পুরে ফসলি জমির টপসয়েল মাটিকাটার অভিযোগ, ইউএনওর হস্তক্ষেপে কাজ বন্ধ

মিরপুরে সরকারি স্কুল ও রাস্তা দখল করে মার্কেট নির্মাণ!

মোঃ সোহেল রানা :
বাংলাদেশের পেক্ষাপটে একটু গভীরভাবে দৃষ্টি দিলে বোঝা যায় বাংলাদেশের কোথাও যেন বর্তমানে শৃঙ্খলা নেই, কেউ কারো কথা মানছে না, কেউ আইন মানছে না, সবাই যেন নিজ নিজ স্বার্থে আখের গোছাতে ব্যস্ত। আমাদের মৌলিক চাহিদার ৫টি, তার মধ্যে শিক্ষা অন্যতম, একটি দেশের শিক্ষাব্যবস্থা যখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়ায় তখন দেশটা ধ্বংসে দারপ্রান্তে চলে যায়।
বাংলাদেশের এই শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে অনেক আগে থেকেই ষড়যন্ত্র চলছে, ইদানিং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দেওয়ার পাঁয়তারায় অনেকেই লিপ্ত রয়েছেন।
মিরপুর ১নম্বর কাঁচা বাজারের উত্তর পাশে, শাহ্আলী মাজারের পূর্বপাশে শাহআলি দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হযরত শাহআলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি কাঁচাবাজারের সাথে । দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে একশ্রেণীর লোক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মার্কেট বানানোর পাঁয়তারা এলিপ্ত তাও আবার সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জায়গা দখল করে মার্কেট বানানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। ইতমধ্যে শাহ্আলী দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা সাথে হযরত শাহআলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের জায়গা ও সরকারি রাস্তা দখল করে মার্কেট বানাইতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে একশ্রেণীর দুষ্কৃতকারী ও কমিটির কিছু দুর্নীতিবাজ স্বার্থপর ব্যক্তিবর্গ।
সুত্রে জানা যায়, কমিটির কিছু দুর্নীতিবাজ দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে সেখানে রাজউক অনুমোদনহীন বহুতল ভবণ করে মার্কেট বানাইতেছে। যা জাতির ভবিষ্যৎ গড়ার প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান মার্কেট বানানোর জন্য কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। একটি জাতির জন্য ভয়ঙ্কর হুমকি, এরকম গর্হিত কাজ একটি ভয়ঙ্কর অপরাধ মনে করেন সুশিল সমাজ।
এলাকার সাধারণ জনগণ ও ছাত্র অভিভাবকরা বাধা দিলেও সে বাধাকে উপেক্ষা করে দুর্নীতিবাজরা মার্কেট নির্মাণে অব্যাহত রাখে ও দোকান বিক্রি করতে থাকে, যারা এই অবৈধ মার্কেট নির্মাণে বাধা দেয় তাদেরকে ভয়-ভীতি দেখানো হয়, এলাকার সাধারণ জনগণ ও ছাত্রছাত্রী অভিভাবকরা নিরুপায় হয়ে ২২ টি সরকারি প্রতিষ্ঠানে দরখাস্ত করেন, শিক্ষা অধিদপ্তর স্থানীয় প্রশাসন, রাজউক, মন্ত্রণালয়, রাজনৈতিক অফিস ও আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ও এলাকাবাসী দরখাস্ত করেন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এ দরখাস্ত করা হয়েছে, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পলিসি ও এ্যাকশন বিভাগের সহকারি পরিচালক তাপস জানান, কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে আমাদের পক্ষ থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করেছি, সহকারী পরিচালক আরো জানান তারা প্রাথমিক ভাবে বাধা দিলেও তাদের বাধাকে উপেক্ষা করেই প্রভাবশালী মহল কাজ করতে থাকে, তাদের বাধাকে আমলে নেয়া হয়নি বলেও অভিযোগে জানান, ব্যাপারটি অতীব গুরুতর অন্যায় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
সাধারণ এলাকাবাসী মিরপুর সিটি কর্পোরেশন অঞ্চল-২ প্রধান নির্বাহী বরাবর দরখাস্ত করেন, প্রধান নির্বাহীর সাথে যোগাযোগ করে জানা যায় প্রধান নির্বাহী ব্যাপারটা আমলে নিয়ে প্রাথমিকভাবে বাধা দেন কিন্তু তাদের বাধাকে উপেক্ষা করেই প্রভাবশালী মহল কাজ অব্যাহত রাখে, তারা উপর মহলে চিঠি লেখেন এবং উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আর্জি জানান, প্রয়োজনে কঠিন থেকে কঠিন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, এরপরেও অবৈধ মার্কেট নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না, উচ্ছেদ করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন। ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবকগণ ঢাকা উত্তরের মেয়র বরাবর দরখাস্ত করেন, সেখান থেকে জানা যায় সিটিকর্পোরেশন ইতিমধ্যে উচ্ছেদের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন এবং খুব শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে বলে জানান।
স্কুলের জায়গার পাশে ১৩নং রোডের প্রস্থ ৩০ ফিট হলেও বর্তমানে ৫ থেকে ৭ ফিট রাস্তা রয়েছে। সরকারি রাস্তার জায়গাও দখল করে বহুতল বাণিজ্যিক ভবন তৈরী করিতেছে এবং নির্মাণ কাজ অব্যহত রয়েছে। এখন ওই ভবনের কারণে ৩৮০ ফিট সরকারি রাস্তা বে-দখল হয়ে যাবে বলে এলাকাবাসি জানান। দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গায় অবৈধ মার্কেট নির্মাণ বিষয়ে রাজউক ইন্সপেক্টর জনাব মুরাদ হাসানের এর নিকট জানতে চাইলে প্রতিবেদককে জানান উচ্ছেদের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।
এলাকাবাসি জানান তারা সাহস কিভাবে পায়? এলাকাবাসী, শিক্ষা অধিদপ্তর ও সিটি কর্পোরেশনের বিরুদ্ধে গিয়ে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ অব্যাহত রাখে, মার্কেটের দোকান বিক্রি করতে থাকে, কীভাবে তারা এত সাহস পায়? তাদের খুটির জোর কোথায়? এই বিষয়ে ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আগাখাঁন মিন্টু সাহেবের সাথে কথা বললে তিনি জানান আমি স্কুল চাই, শিক্ষা চাই। কারা জায়গা দখল করছে এটা আমার জানা নেই এবং জানিনা।
এলাকার নিরীহ জনগণ ও ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকগণের দাবি একটাই, স্কুলের জাগা স্কুলকে ফেরত দিতে জোর দাবি জানান।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

আদমদীঘিতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ: গ্রেফতার-১

মিরপুরে সরকারি স্কুল ও রাস্তা দখল করে মার্কেট নির্মাণ!

আপডেট টাইম : ০৭:০৬:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০২২

মোঃ সোহেল রানা :
বাংলাদেশের পেক্ষাপটে একটু গভীরভাবে দৃষ্টি দিলে বোঝা যায় বাংলাদেশের কোথাও যেন বর্তমানে শৃঙ্খলা নেই, কেউ কারো কথা মানছে না, কেউ আইন মানছে না, সবাই যেন নিজ নিজ স্বার্থে আখের গোছাতে ব্যস্ত। আমাদের মৌলিক চাহিদার ৫টি, তার মধ্যে শিক্ষা অন্যতম, একটি দেশের শিক্ষাব্যবস্থা যখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়ায় তখন দেশটা ধ্বংসে দারপ্রান্তে চলে যায়।
বাংলাদেশের এই শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে অনেক আগে থেকেই ষড়যন্ত্র চলছে, ইদানিং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দেওয়ার পাঁয়তারায় অনেকেই লিপ্ত রয়েছেন।
মিরপুর ১নম্বর কাঁচা বাজারের উত্তর পাশে, শাহ্আলী মাজারের পূর্বপাশে শাহআলি দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হযরত শাহআলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি কাঁচাবাজারের সাথে । দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে একশ্রেণীর লোক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মার্কেট বানানোর পাঁয়তারা এলিপ্ত তাও আবার সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জায়গা দখল করে মার্কেট বানানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। ইতমধ্যে শাহ্আলী দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা সাথে হযরত শাহআলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের জায়গা ও সরকারি রাস্তা দখল করে মার্কেট বানাইতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে একশ্রেণীর দুষ্কৃতকারী ও কমিটির কিছু দুর্নীতিবাজ স্বার্থপর ব্যক্তিবর্গ।
সুত্রে জানা যায়, কমিটির কিছু দুর্নীতিবাজ দরগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে সেখানে রাজউক অনুমোদনহীন বহুতল ভবণ করে মার্কেট বানাইতেছে। যা জাতির ভবিষ্যৎ গড়ার প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান মার্কেট বানানোর জন্য কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। একটি জাতির জন্য ভয়ঙ্কর হুমকি, এরকম গর্হিত কাজ একটি ভয়ঙ্কর অপরাধ মনে করেন সুশিল সমাজ।
এলাকার সাধারণ জনগণ ও ছাত্র অভিভাবকরা বাধা দিলেও সে বাধাকে উপেক্ষা করে দুর্নীতিবাজরা মার্কেট নির্মাণে অব্যাহত রাখে ও দোকান বিক্রি করতে থাকে, যারা এই অবৈধ মার্কেট নির্মাণে বাধা দেয় তাদেরকে ভয়-ভীতি দেখানো হয়, এলাকার সাধারণ জনগণ ও ছাত্রছাত্রী অভিভাবকরা নিরুপায় হয়ে ২২ টি সরকারি প্রতিষ্ঠানে দরখাস্ত করেন, শিক্ষা অধিদপ্তর স্থানীয় প্রশাসন, রাজউক, মন্ত্রণালয়, রাজনৈতিক অফিস ও আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ও এলাকাবাসী দরখাস্ত করেন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এ দরখাস্ত করা হয়েছে, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পলিসি ও এ্যাকশন বিভাগের সহকারি পরিচালক তাপস জানান, কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে আমাদের পক্ষ থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করেছি, সহকারী পরিচালক আরো জানান তারা প্রাথমিক ভাবে বাধা দিলেও তাদের বাধাকে উপেক্ষা করেই প্রভাবশালী মহল কাজ করতে থাকে, তাদের বাধাকে আমলে নেয়া হয়নি বলেও অভিযোগে জানান, ব্যাপারটি অতীব গুরুতর অন্যায় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
সাধারণ এলাকাবাসী মিরপুর সিটি কর্পোরেশন অঞ্চল-২ প্রধান নির্বাহী বরাবর দরখাস্ত করেন, প্রধান নির্বাহীর সাথে যোগাযোগ করে জানা যায় প্রধান নির্বাহী ব্যাপারটা আমলে নিয়ে প্রাথমিকভাবে বাধা দেন কিন্তু তাদের বাধাকে উপেক্ষা করেই প্রভাবশালী মহল কাজ অব্যাহত রাখে, তারা উপর মহলে চিঠি লেখেন এবং উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আর্জি জানান, প্রয়োজনে কঠিন থেকে কঠিন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, এরপরেও অবৈধ মার্কেট নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না, উচ্ছেদ করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন। ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবকগণ ঢাকা উত্তরের মেয়র বরাবর দরখাস্ত করেন, সেখান থেকে জানা যায় সিটিকর্পোরেশন ইতিমধ্যে উচ্ছেদের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন এবং খুব শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে বলে জানান।
স্কুলের জায়গার পাশে ১৩নং রোডের প্রস্থ ৩০ ফিট হলেও বর্তমানে ৫ থেকে ৭ ফিট রাস্তা রয়েছে। সরকারি রাস্তার জায়গাও দখল করে বহুতল বাণিজ্যিক ভবন তৈরী করিতেছে এবং নির্মাণ কাজ অব্যহত রয়েছে। এখন ওই ভবনের কারণে ৩৮০ ফিট সরকারি রাস্তা বে-দখল হয়ে যাবে বলে এলাকাবাসি জানান। দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গায় অবৈধ মার্কেট নির্মাণ বিষয়ে রাজউক ইন্সপেক্টর জনাব মুরাদ হাসানের এর নিকট জানতে চাইলে প্রতিবেদককে জানান উচ্ছেদের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।
এলাকাবাসি জানান তারা সাহস কিভাবে পায়? এলাকাবাসী, শিক্ষা অধিদপ্তর ও সিটি কর্পোরেশনের বিরুদ্ধে গিয়ে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ অব্যাহত রাখে, মার্কেটের দোকান বিক্রি করতে থাকে, কীভাবে তারা এত সাহস পায়? তাদের খুটির জোর কোথায়? এই বিষয়ে ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আগাখাঁন মিন্টু সাহেবের সাথে কথা বললে তিনি জানান আমি স্কুল চাই, শিক্ষা চাই। কারা জায়গা দখল করছে এটা আমার জানা নেই এবং জানিনা।
এলাকার নিরীহ জনগণ ও ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকগণের দাবি একটাই, স্কুলের জাগা স্কুলকে ফেরত দিতে জোর দাবি জানান।