ঢাকা ০৩:০২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
আদমদীঘিতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ: গ্রেফতার-১ মহম্মদপুরে হত্যার মামলার আসামি জামিনে এসে বাদিকে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি, পরে মারধর আ.লীগ নেতার হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় আইসক্রিম ফাক্টরি মালিক কালিহাতীতে লিঙ্গ কাটার অভিযোগ স্ত্রী’র বিরুদ্ধে ফিটনেস বিহীন নৌযানে সয়লাব সদরঘাট,নেই পর্যাপ্ত দক্ষ নাবিক! ৫০ কোটি টাকার মামলা থেকে বাঁচতে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার পাল্টা মামলা! ফরিদপুরে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় তোলপাড় রশুনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের নব সভাপতি হলেন আবু সাঈদ মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মাগুরার হৃদয়পুরে ফসলি জমির টপসয়েল মাটিকাটার অভিযোগ, ইউএনওর হস্তক্ষেপে কাজ বন্ধ

মিরপুরের আবাসিক হোটেলে অসামাজিক কার্যকলাপের স্বর্গরাজ্য-(পর্ব-১)

সোহেল রানা :
রাজধনী মিরপুর-১ নম্বর শাহআলী থানাধীন মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের সামনে রবিউল টাওয়ারের ৯ম তলায় নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেল ও বাগদাদ মার্কেটের ১০ম তলায় হোটেল আল মামুন এই দুইটি আবাসিক হোটেলে অবাধে চলছে দেহ ব্যবসা। সুত্রে জানা যায়, নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেলের মালিক মারুফ মিরপুরের সকল আবাসিক হোটেল গুলো নিয়ন্ত্রন করে থাকে । দেহ ব্যবসা নিরাপদে করতে হোটেল মালিক ও দালালরা মারুফের কথামোতাবেক চলে। প্রতিদিনের আয়ের একটি অংশ মারুফকে দিয়ে থাকে এ অবৈধ ব্যবসায়ীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দালাল জানান, হোটেল মালিক ও দালালদের সঙ্গে পুলিশের মাসিক চুক্তি রয়েছে। তবে পুলিশ চাইলে একদিনের মধ্যেই এসব অবৈধ ব্যবসা বন্ধ করতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সচেতন ব্যক্তিরা। অবাধে দেহ ব্যবসা করার কারণে সমাজে এ নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। আবাসিক হোটেলসহ দেহ ব্যবসাসহ মাদকের আগ্রাসন বন্ধে প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল। মিরপুরের বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণপু স্থানগুলিতে পতিতাদের দৃশ্যমান বিচরণ, সন্দেহজনক ঘোরাঘুরি ও চলাফেরার কারণে তারা অনৈতিক কাজের জন্য হোটেল আল মামুন ও নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেল নিরাপদ মনে করে অবস্থান নেই। টপ টেররদের চাঁদাবাজি, মাদক, নারী ব্যবসা নিয়ন্ত্রিত হয় এসব হোটেল থেকেই হয়। বর্তমানে ওই দুই হোটেলে বসে নারী দেহের পসরা, আর সাথে মাদক তো রয়েছে। প্রশাসনের চোখের সামনেই চলছে তাদের এই অবৈধ দেহ ব্যবসা। তবু কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়না। মিরপুর-১ নম্বর ফুট ওভার ব্রিজ এখন অনেকটা পতিতার হাঁট হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেছে। পতিতাদের খদ্দের এখানে মিলিত হয়। ২৪ ঘন্টা চলে কেনা বেচা। ক্রমশঃ বাড়ছে এই দুই হেটেলে পতিতাদের বাজার। ওই দুই হোটেলে ঘুরে দেখা যায় হোটেলের পিছন দিকে রয়েছে পালনোর জন্য বিশেষ সিড়ি। যার ফলে প্রসাশন অভিযান চালালে কাউকে খুজে পায়না। আরও বিস্তারিত আসছে আগামী পর্বে।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

আদমদীঘিতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ: গ্রেফতার-১

মিরপুরের আবাসিক হোটেলে অসামাজিক কার্যকলাপের স্বর্গরাজ্য-(পর্ব-১)

আপডেট টাইম : ০৬:০২:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

সোহেল রানা :
রাজধনী মিরপুর-১ নম্বর শাহআলী থানাধীন মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের সামনে রবিউল টাওয়ারের ৯ম তলায় নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেল ও বাগদাদ মার্কেটের ১০ম তলায় হোটেল আল মামুন এই দুইটি আবাসিক হোটেলে অবাধে চলছে দেহ ব্যবসা। সুত্রে জানা যায়, নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেলের মালিক মারুফ মিরপুরের সকল আবাসিক হোটেল গুলো নিয়ন্ত্রন করে থাকে । দেহ ব্যবসা নিরাপদে করতে হোটেল মালিক ও দালালরা মারুফের কথামোতাবেক চলে। প্রতিদিনের আয়ের একটি অংশ মারুফকে দিয়ে থাকে এ অবৈধ ব্যবসায়ীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দালাল জানান, হোটেল মালিক ও দালালদের সঙ্গে পুলিশের মাসিক চুক্তি রয়েছে। তবে পুলিশ চাইলে একদিনের মধ্যেই এসব অবৈধ ব্যবসা বন্ধ করতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সচেতন ব্যক্তিরা। অবাধে দেহ ব্যবসা করার কারণে সমাজে এ নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। আবাসিক হোটেলসহ দেহ ব্যবসাসহ মাদকের আগ্রাসন বন্ধে প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল। মিরপুরের বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণপু স্থানগুলিতে পতিতাদের দৃশ্যমান বিচরণ, সন্দেহজনক ঘোরাঘুরি ও চলাফেরার কারণে তারা অনৈতিক কাজের জন্য হোটেল আল মামুন ও নিউ লন্ডন প্যালেস হোটেল নিরাপদ মনে করে অবস্থান নেই। টপ টেররদের চাঁদাবাজি, মাদক, নারী ব্যবসা নিয়ন্ত্রিত হয় এসব হোটেল থেকেই হয়। বর্তমানে ওই দুই হোটেলে বসে নারী দেহের পসরা, আর সাথে মাদক তো রয়েছে। প্রশাসনের চোখের সামনেই চলছে তাদের এই অবৈধ দেহ ব্যবসা। তবু কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়না। মিরপুর-১ নম্বর ফুট ওভার ব্রিজ এখন অনেকটা পতিতার হাঁট হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেছে। পতিতাদের খদ্দের এখানে মিলিত হয়। ২৪ ঘন্টা চলে কেনা বেচা। ক্রমশঃ বাড়ছে এই দুই হেটেলে পতিতাদের বাজার। ওই দুই হোটেলে ঘুরে দেখা যায় হোটেলের পিছন দিকে রয়েছে পালনোর জন্য বিশেষ সিড়ি। যার ফলে প্রসাশন অভিযান চালালে কাউকে খুজে পায়না। আরও বিস্তারিত আসছে আগামী পর্বে।