ঢাকা ০৬:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

মাগুরার আলোকদিয়া গ্রামে নাবালক মেয়েকে অপহরণের চেষ্টা

মাগুরা প্রতিনিধি
মাগুরা সদর আলোকদিয়া বাজারের পাশে বৃহস্পতিবার বিকাল আনুমানিক ৫.০০ ঘটিকার সময় ২০/২৫জন সন্ত্রাসী গ্রুপ অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুর রশিদের বাড়ীতে জোর পূর্বক ঢুকে তার নাবালক নাতিনকে অপহরণের চেষ্টা চালায়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানাধিন আমডাঙ্গা গ্রামের সন্ত্রাসী দালাল বাবলু ও ফরিদপুর, মধুখালী বাজারের পাশে মৃত মোস্তফা শরিফের ছেলে সন্ত্রাসী জামির শরিফসহ ২০/২৫ জনের সন্ত্রাসী গ্রুপ নিয়ে ওই বাড়ীতে হামলা চালায়। মাগুরা থানা পুলিশ ঘটানা স্থলে পৌছলে তারা পালিয়ে যায়। তথ্যনুসন্ধানে জানা যায় সন্ত্রাসী জামির শরিফ অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুর রশিদের নাতিন ১৫ বছরের নবালক মেয়েকে তুলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। বাড়ীর লোকজন বাধা দিলে তাদেরকে মারধর করে ওই সন্ত্রাসী গ্রুপ। সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে কিছু মাহিলা সদস্যও দেখা যায়। মেয়েটিকে ঘরের মধ্যে আটকিয়ে রাখার পরও ওই সন্ত্রাসীরা দরজা-জানালা ভাঙ্গার জন্য পায়তারা চালায়। এলাকার লোকজন বাধা দিলে ভাংতে পারে নাই। মাগুরা থানার এসআই মাদব জানান আমি বাড়িতে ঢোকার সাথে সাথে তারা পালিয়ে যায়। মেয়ের নানা আব্দুর রশিদ জানান আমার নাতিনের বিয়ের বয়স হয়নি তার বয়স ১৫ বছর এবং আমরা বিয়ে দেবো না বলে সন্ত্রাসী দালাল বাবলু ও সন্ত্রাসী জামির শরিফসহ ২০/২৫জন আমার বাড়ীতে এসে আমার নাতিনকে তুলে নেয়ার জন্য চেষ্টা চালায়। পরে মাগুরা থানা পুলিশ আমার বাড়ীতে আসা মাত্র ওই সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সুত্রে আরও জানা যায়, মেয়েটি এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী, ওই বাড়ীর পাশে রয়েছে হাতুড়ে সাঈদ ডাক্তার তার ছেলে ভূয়া ডিগ্রীধারী সুমন ডাক্তার তার বাড়ীতে ওই সন্ত্রাসীরা প্রায় আসে এবং তারাই ওই সন্ত্রাসীদের একমাত্র আশ্রায়দাতা, যার ফলে ফরিদপুর জেলা থেকে এসে অপহরণ করার সাহস পায়। এলাকাবাসি জানান ওই সন্ত্রাসীদের গডফাদার হলো সুমন ডাক্তার, তার উসকানিতে ওই সন্ত্রাসীরা সাহস পেয়েছে। ওই সন্ত্রাসীদের সাথে ভুয়া সুমন ডাক্তারের গ্রেফতার চাই।

ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

মাগুরার আলোকদিয়া গ্রামে নাবালক মেয়েকে অপহরণের চেষ্টা

আপডেট টাইম : ০৭:০৩:৫১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

মাগুরা প্রতিনিধি
মাগুরা সদর আলোকদিয়া বাজারের পাশে বৃহস্পতিবার বিকাল আনুমানিক ৫.০০ ঘটিকার সময় ২০/২৫জন সন্ত্রাসী গ্রুপ অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুর রশিদের বাড়ীতে জোর পূর্বক ঢুকে তার নাবালক নাতিনকে অপহরণের চেষ্টা চালায়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানাধিন আমডাঙ্গা গ্রামের সন্ত্রাসী দালাল বাবলু ও ফরিদপুর, মধুখালী বাজারের পাশে মৃত মোস্তফা শরিফের ছেলে সন্ত্রাসী জামির শরিফসহ ২০/২৫ জনের সন্ত্রাসী গ্রুপ নিয়ে ওই বাড়ীতে হামলা চালায়। মাগুরা থানা পুলিশ ঘটানা স্থলে পৌছলে তারা পালিয়ে যায়। তথ্যনুসন্ধানে জানা যায় সন্ত্রাসী জামির শরিফ অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুর রশিদের নাতিন ১৫ বছরের নবালক মেয়েকে তুলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। বাড়ীর লোকজন বাধা দিলে তাদেরকে মারধর করে ওই সন্ত্রাসী গ্রুপ। সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে কিছু মাহিলা সদস্যও দেখা যায়। মেয়েটিকে ঘরের মধ্যে আটকিয়ে রাখার পরও ওই সন্ত্রাসীরা দরজা-জানালা ভাঙ্গার জন্য পায়তারা চালায়। এলাকার লোকজন বাধা দিলে ভাংতে পারে নাই। মাগুরা থানার এসআই মাদব জানান আমি বাড়িতে ঢোকার সাথে সাথে তারা পালিয়ে যায়। মেয়ের নানা আব্দুর রশিদ জানান আমার নাতিনের বিয়ের বয়স হয়নি তার বয়স ১৫ বছর এবং আমরা বিয়ে দেবো না বলে সন্ত্রাসী দালাল বাবলু ও সন্ত্রাসী জামির শরিফসহ ২০/২৫জন আমার বাড়ীতে এসে আমার নাতিনকে তুলে নেয়ার জন্য চেষ্টা চালায়। পরে মাগুরা থানা পুলিশ আমার বাড়ীতে আসা মাত্র ওই সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সুত্রে আরও জানা যায়, মেয়েটি এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী, ওই বাড়ীর পাশে রয়েছে হাতুড়ে সাঈদ ডাক্তার তার ছেলে ভূয়া ডিগ্রীধারী সুমন ডাক্তার তার বাড়ীতে ওই সন্ত্রাসীরা প্রায় আসে এবং তারাই ওই সন্ত্রাসীদের একমাত্র আশ্রায়দাতা, যার ফলে ফরিদপুর জেলা থেকে এসে অপহরণ করার সাহস পায়। এলাকাবাসি জানান ওই সন্ত্রাসীদের গডফাদার হলো সুমন ডাক্তার, তার উসকানিতে ওই সন্ত্রাসীরা সাহস পেয়েছে। ওই সন্ত্রাসীদের সাথে ভুয়া সুমন ডাক্তারের গ্রেফতার চাই।