ঢাকা ০৫:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

অপমানের বদলা নিতে শিশু হয়ে শিশুকে খুন !

মাহামুদুন নবী (স্টাফ রিপোর্টার) :–
মাগুরা মহম্মদপুরের কানুটিয়া এলাকায় অপমানের বদলা নিতে হিরা (৩) নামের একটি শিশুকে খুন করেছে তারই চাচাতো বোন মুন্নি (১৩) নামের আরেক শিশু। সোমবার সন্ধ্যায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।
নিহত হিরা বেথুলিয়া গ্রামের হিরু মোল্যার মেয়ে। সে একজন ভ্রাম্যমান আইসক্রীম ব্যাবসায়ী।

স্থানীয়দের বক্তব্য অনুযায়ী এবং শিশুটির মাথায় কাটা দাগ দেখে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হয়েছিল জমিজমা নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরেই কুপিয়ে ও আঘাত করে এ ঘটনা কোন বয়ষ্ক লোকই ঘটিয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে প্রাথমিকভাবে হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে প্রথমে দুই জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।
পরে জেলা পুলিশ সুপার জনাব মোঃ মসিউদ্দৌলা রেজা,পিপিএম (বার) মহোদয়ের নির্দেশে জেলা পুলিশের একটি চৌকস দল হত্যাকাণ্ডের মাত্র ছয় ঘন্টার মধ্যে রহস্য উদঘাটন পূর্বক আসামি গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামি পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতে তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।
জবানবন্দীতে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে সবার সামনে। প্রকৃত ঘটনা জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার জের ও অপমানের বদলা নিতে গিয়ে মুন্নি নামক ১৩ বছর বয়সী একটি শিশু তারই চাচাতো বোন হিরাকে হত্যা করে। প্রথমে কাঠ দিয়ে মাথায় আঘাত করে এবং পরে মাথায় ব্লেড দিয়ে পুচিয়ে হত্যা করে।

নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হিরু মোল্যার সাথে তার বাবা দাউদ মোল্যা, আপন ভাই বিপ্লব মোল্যা, ফারুক মোল্যা, ও আলীম মোল্যার মাঝে পারিবারিক শত্রুতা চলমান ছিল। তারই জের ধরে উভয়পক্ষ একাধিকবার থানায় যান।

ঘটনার দিন মাগরিবের পূর্বে নিহত হিরা খাতুন তার মা বন্যা খাতুনের নিকট ভাত খেতে চাইলে হীরাকে ভাত দিয়ে হীরার বড় বোন মুসলিমা খাতুন ০৫) কে প্রতিবেশীর বাড়িতে খুঁজতে যান। মুসলিমাকে নিয়ে বাড়ি ফেরার সময় বাড়ির পাশেই লুঙ্গী দিয়ে মোড়ানো মেয়েকে দেখতে পান। মোড়ানো কাপড় খুললে হিরার মৃত লাশ দেখতে পান। হিরার মাথায় আঘাতের চিহ্ন ও দেখা যায় । এসময় হিরার বাবা হিরু মোল্যা আইসক্রিম বিক্রির জন্য বাইরে ছিলেন।
ঘটনার পর মাগুরা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অপস্) মোঃ কলিমুল্লাহ ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। পরে পুলিশ ঘটনার ৬ ঘন্টার মধ্যে প্রকৃত হত্যাকারীকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করতে সক্ষম হন।
মহম্মদপুর থানার ওসি অসিত কুমার রায় বলেন, প্রকৃত খুনিকে আমরা আটক করতে সক্ষম হয়েছি এবং আদালতে পাঠিয়েছি।

ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

অপমানের বদলা নিতে শিশু হয়ে শিশুকে খুন !

আপডেট টাইম : ০৬:০২:২৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ অক্টোবর ২০২২

মাহামুদুন নবী (স্টাফ রিপোর্টার) :–
মাগুরা মহম্মদপুরের কানুটিয়া এলাকায় অপমানের বদলা নিতে হিরা (৩) নামের একটি শিশুকে খুন করেছে তারই চাচাতো বোন মুন্নি (১৩) নামের আরেক শিশু। সোমবার সন্ধ্যায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।
নিহত হিরা বেথুলিয়া গ্রামের হিরু মোল্যার মেয়ে। সে একজন ভ্রাম্যমান আইসক্রীম ব্যাবসায়ী।

স্থানীয়দের বক্তব্য অনুযায়ী এবং শিশুটির মাথায় কাটা দাগ দেখে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হয়েছিল জমিজমা নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরেই কুপিয়ে ও আঘাত করে এ ঘটনা কোন বয়ষ্ক লোকই ঘটিয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে প্রাথমিকভাবে হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে প্রথমে দুই জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।
পরে জেলা পুলিশ সুপার জনাব মোঃ মসিউদ্দৌলা রেজা,পিপিএম (বার) মহোদয়ের নির্দেশে জেলা পুলিশের একটি চৌকস দল হত্যাকাণ্ডের মাত্র ছয় ঘন্টার মধ্যে রহস্য উদঘাটন পূর্বক আসামি গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামি পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতে তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।
জবানবন্দীতে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে সবার সামনে। প্রকৃত ঘটনা জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার জের ও অপমানের বদলা নিতে গিয়ে মুন্নি নামক ১৩ বছর বয়সী একটি শিশু তারই চাচাতো বোন হিরাকে হত্যা করে। প্রথমে কাঠ দিয়ে মাথায় আঘাত করে এবং পরে মাথায় ব্লেড দিয়ে পুচিয়ে হত্যা করে।

নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হিরু মোল্যার সাথে তার বাবা দাউদ মোল্যা, আপন ভাই বিপ্লব মোল্যা, ফারুক মোল্যা, ও আলীম মোল্যার মাঝে পারিবারিক শত্রুতা চলমান ছিল। তারই জের ধরে উভয়পক্ষ একাধিকবার থানায় যান।

ঘটনার দিন মাগরিবের পূর্বে নিহত হিরা খাতুন তার মা বন্যা খাতুনের নিকট ভাত খেতে চাইলে হীরাকে ভাত দিয়ে হীরার বড় বোন মুসলিমা খাতুন ০৫) কে প্রতিবেশীর বাড়িতে খুঁজতে যান। মুসলিমাকে নিয়ে বাড়ি ফেরার সময় বাড়ির পাশেই লুঙ্গী দিয়ে মোড়ানো মেয়েকে দেখতে পান। মোড়ানো কাপড় খুললে হিরার মৃত লাশ দেখতে পান। হিরার মাথায় আঘাতের চিহ্ন ও দেখা যায় । এসময় হিরার বাবা হিরু মোল্যা আইসক্রিম বিক্রির জন্য বাইরে ছিলেন।
ঘটনার পর মাগুরা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অপস্) মোঃ কলিমুল্লাহ ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। পরে পুলিশ ঘটনার ৬ ঘন্টার মধ্যে প্রকৃত হত্যাকারীকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করতে সক্ষম হন।
মহম্মদপুর থানার ওসি অসিত কুমার রায় বলেন, প্রকৃত খুনিকে আমরা আটক করতে সক্ষম হয়েছি এবং আদালতে পাঠিয়েছি।