ঢাকা ০৪:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ভূল অসত্য সংবাদ পরিবেশন করায় ব্যবসায়ীর  সংবাদ সম্মেলন কেটালী পাড়ায় দিনে দুপুরে সরকারী কোয়াটারে চুরি জনবান্ধব ভূমি সংস্কারে অগ্রাধিকার দিচ্ছে সরকার: ভূমিমন্ত্রী ভূমি অফিসে যেন কোনো দালাল না থাকে: মন্ত্রী ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শাহীন আলম বিলাশবহুল ৮তলা বাড়ীর মালিক! মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র ‘অপারেশন জ্যাকপট’ নিয়ে এতো অনাসৃষ্টি কেন? চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা: শোভন দত্তের বিরুদ্ধে সরকারী টাকা আত্মসাত,বিদেশে টাকা পাচার,অবৈধ সম্পদ অর্জন ও নারী কেলেংকারীর অভিযোগ! দদুকের তদন্ত থাকা কর্মকর্তাকে চুক্তিভিত্তিক ডিজি নিয়োগের তোড়জোড়! গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়িচাপায় শ্রমিক নিহত, মহাসড়ক অবরোধ মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

বড়াইগ্রামে বিনা দোষে কারাবাসে যুবক, দ্রুত মুক্তি দাবি

নাটোর প্রতিনিধি:
নাটোরের বড়াইগ্রামে পুলিশী তদন্ত না করে মামলা রেকর্ডের ফলে বিনা দোষে কারাবাসে দিন-রাত কাটাচ্ছেন এক যুবক। এতে ওই যুবকের পরিবার ও গ্রামবাসী পুলিশের দায়িত্ব নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন। কারাগারে আটক ওই যুবকের পরিবার ও সুশীল সমাজ সহ মানবাধিকার কর্মীরা দ্রুত নির্দোষ ওই যুবকের মুক্তি দেওয়া সহ এ ঘটনায় ওই নির্দোষ যুবককে ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি মিথ্যা মামলা দায়েরকারীকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করেছেন। কারাবাসে আটক ওই যুবকের নাম জিয়ারুল ইসলাম জিনার (৩৮)। সে বড়াইগ্রামের জোনাইল ইউনিয়নের নাজিরপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে। তাকে গত সোমবার গভীর রাতে নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ আটক করে ও পরের দিন জেল হাজতে প্রেরণ করে।
জানা যায়, স্থানীয় ভিন্ন একটি চেকের মামলায় জিয়ারুল স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি আরিফ হোসেনের ঘনিষ্ট সহযোগী মাসুদ রানার বিরুদ্ধে বড়াইগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাক্ষী দিলে এতে ক্ষিপ্ত হয় ওই আরিফ। পরে থানা চত্বরে জিয়ারুলকে ওই আরিফ হুমকি দিয়ে বলেন ‘আজই তোকে হাজতে পাঠাবো’। এরপর সোমবার সন্ধ্যায় নিজের খালা নাজিরপুর গ্রামের রাবেয়া বেগমকে বাদী করে স্থানীয় একটি মারামারি মামলায় ২ নং আসামী হিসেবে জিয়ারুল ইসলাম জিনারের নাম লিপিবদ্ধ করে থানায় এজাহার দায়ের করেন। সেখানে জিয়ারুল ধারালো হাসুয়া দিয়ে কোপ দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে। কিন্তু ওই মারামারির সাথে কোনই সংশ্লিষ্টতা নাই জিয়ারুলের। এমনকি মামলার বাদী রাবেয়া বেগম নিজেই জানেন না যে ২ নং আসামীর নাম হিসেবে জিয়ারুলের নাম রয়েছে। উনি এই নাম অন্তর্ভূক্তের জন্য ভাগ্নে আরিফকে দায়ী করেছেন।
মারামারি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রবিউল ইসলাম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, তদন্ত না করে মামলা রেকর্ড করা ও জিয়ারুলকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করাটা একটি বড় ধরণের মিসটেক। তিনি আশ্বস্ত করে বলেন, চার্জসীটে জিয়ারুলের নাম বাদ দেওয়া হবে।
বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সিদ্দিক জানান, বিষয়টি দুঃখজনক। জিয়ারুল যেনো অযথা হয়রানী না হয় ও যেনো দ্রুত এই মামলা থেকে অব্যহতি পায় তার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জনপ্রিয় সংবাদ

ভূল অসত্য সংবাদ পরিবেশন করায় ব্যবসায়ীর  সংবাদ সম্মেলন

বড়াইগ্রামে বিনা দোষে কারাবাসে যুবক, দ্রুত মুক্তি দাবি

আপডেট টাইম : ১১:৫৮:২০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৩ নভেম্বর ২০২২

নাটোর প্রতিনিধি:
নাটোরের বড়াইগ্রামে পুলিশী তদন্ত না করে মামলা রেকর্ডের ফলে বিনা দোষে কারাবাসে দিন-রাত কাটাচ্ছেন এক যুবক। এতে ওই যুবকের পরিবার ও গ্রামবাসী পুলিশের দায়িত্ব নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন। কারাগারে আটক ওই যুবকের পরিবার ও সুশীল সমাজ সহ মানবাধিকার কর্মীরা দ্রুত নির্দোষ ওই যুবকের মুক্তি দেওয়া সহ এ ঘটনায় ওই নির্দোষ যুবককে ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি মিথ্যা মামলা দায়েরকারীকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করেছেন। কারাবাসে আটক ওই যুবকের নাম জিয়ারুল ইসলাম জিনার (৩৮)। সে বড়াইগ্রামের জোনাইল ইউনিয়নের নাজিরপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে। তাকে গত সোমবার গভীর রাতে নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ আটক করে ও পরের দিন জেল হাজতে প্রেরণ করে।
জানা যায়, স্থানীয় ভিন্ন একটি চেকের মামলায় জিয়ারুল স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি আরিফ হোসেনের ঘনিষ্ট সহযোগী মাসুদ রানার বিরুদ্ধে বড়াইগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাক্ষী দিলে এতে ক্ষিপ্ত হয় ওই আরিফ। পরে থানা চত্বরে জিয়ারুলকে ওই আরিফ হুমকি দিয়ে বলেন ‘আজই তোকে হাজতে পাঠাবো’। এরপর সোমবার সন্ধ্যায় নিজের খালা নাজিরপুর গ্রামের রাবেয়া বেগমকে বাদী করে স্থানীয় একটি মারামারি মামলায় ২ নং আসামী হিসেবে জিয়ারুল ইসলাম জিনারের নাম লিপিবদ্ধ করে থানায় এজাহার দায়ের করেন। সেখানে জিয়ারুল ধারালো হাসুয়া দিয়ে কোপ দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে। কিন্তু ওই মারামারির সাথে কোনই সংশ্লিষ্টতা নাই জিয়ারুলের। এমনকি মামলার বাদী রাবেয়া বেগম নিজেই জানেন না যে ২ নং আসামীর নাম হিসেবে জিয়ারুলের নাম রয়েছে। উনি এই নাম অন্তর্ভূক্তের জন্য ভাগ্নে আরিফকে দায়ী করেছেন।
মারামারি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রবিউল ইসলাম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, তদন্ত না করে মামলা রেকর্ড করা ও জিয়ারুলকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করাটা একটি বড় ধরণের মিসটেক। তিনি আশ্বস্ত করে বলেন, চার্জসীটে জিয়ারুলের নাম বাদ দেওয়া হবে।
বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সিদ্দিক জানান, বিষয়টি দুঃখজনক। জিয়ারুল যেনো অযথা হয়রানী না হয় ও যেনো দ্রুত এই মামলা থেকে অব্যহতি পায় তার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।