ঢাকা ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ভূল অসত্য সংবাদ পরিবেশন করায় ব্যবসায়ীর  সংবাদ সম্মেলন কেটালী পাড়ায় দিনে দুপুরে সরকারী কোয়াটারে চুরি জনবান্ধব ভূমি সংস্কারে অগ্রাধিকার দিচ্ছে সরকার: ভূমিমন্ত্রী ভূমি অফিসে যেন কোনো দালাল না থাকে: মন্ত্রী ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শাহীন আলম বিলাশবহুল ৮তলা বাড়ীর মালিক! মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র ‘অপারেশন জ্যাকপট’ নিয়ে এতো অনাসৃষ্টি কেন? চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা: শোভন দত্তের বিরুদ্ধে সরকারী টাকা আত্মসাত,বিদেশে টাকা পাচার,অবৈধ সম্পদ অর্জন ও নারী কেলেংকারীর অভিযোগ! দদুকের তদন্ত থাকা কর্মকর্তাকে চুক্তিভিত্তিক ডিজি নিয়োগের তোড়জোড়! গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়িচাপায় শ্রমিক নিহত, মহাসড়ক অবরোধ মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

খারসন থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হল রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক:

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরুর দিক থেকেই খারসন অঞ্চলে আধিপত্য বজায় রেখেছিল রুশ সেনা। প্রায় ন’মাস কেটে যাওয়ার পরে সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হল রাশিয়া। শুক্রবারেই খারসন অঞ্চল পুনরুদ্ধার করতে উপস্থিত হয়েছে ইউক্রেনীয় সেনা। রুশ সেনা বিদায় নেওয়ার পরে খুশিতে মেতে উঠেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। জাতীয় সংগীত বাজিয়ে কার্যত উৎসবে মেতে উঠেছেন ইউক্রেনবাসী। প্রসঙ্গত, মাসখানেক আগেই গণভোটের মাধ্যমে খারসনকে রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন ভ্লাদিমির পুতিন। কিন্তু নিজের এই অবস্থান ধরে রাখতে পারেননি রুশ প্রেসিডেন্ট।

খারসন এলাকা থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহার করার ঘোষণা করা হয়েছিল বেশ কিছুদিন আগেই। অবশেষে শুক্রবার খারসন থেকে সমস্ত সেনা প্রত্যাহার করে নেয় রাশিয়া। তারপরেই সমগ্র খারসনের দখল নেয় ইউক্রেনীয় সেনা। নীল-হলুদ জাতীয় পতাকা উড়িয়ে, জাতীয় সংগীত বাজিয়ে সেনাকে স্বাগত জানিয়েছেন খারসনের বাসিন্দারা। দীর্ঘ সময় পরে স্বাধীনতা ফিরে পেয়ে উচ্ছ্বসিত ইউক্রেনীয়রা। তাঁদের মধ্যে একজন বলেছেন, “পুতিন আমাদের মেরে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু এই যুদ্ধ করে আসলে নিজের দেশেরই ক্ষতি করেছেন তিনি।”

দীর্ঘদিন ধরে রুশ সেনার অধীনে থাকতে গিয়ে দমবন্ধ হয়ে গিয়েছে খারসনের বাসিন্দাদের। এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, “আজকের দিনটা জীবনের সেরা দিন।” কীভাবে রুশ সেনার চোখ এড়িয়ে টানা ২০০ দিন লুকিয়ে ছিলেন, সেই কাহিনিও শুনিয়েছেন এক ব্যক্তি। দীর্ঘদিন পরে পুরোন বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে পেরেছেন। কেউ বা আবার স্বাভাবিক ভাবে বাজারে গিয়ে পছন্দের জিনিসপত্র কিনেছেন। সব মিলিয়ে উৎসবের মেজাজ গোটা খারসন জুড়ে।

তবে যুদ্ধের আঘাত সহ্য করতে গিয়ে কার্যত নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে খারসন। প্রায় ধ্বংসস্তূপ হয়ে যাওয়া শহরকে ফের গড়ে তুলতে হবে। পানীয় জল, ওষুধ, খাবার- কোনও জিনিসেরই জোগান নেই খারসনে। এই অঞ্চল ছেড়ে চলে যাওয়ার আগে যাবতীয় পরিকাঠামো ধ্বংস করে দিয়েছে রুশ সেনা, এমনটাই দাবি করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। ক্রমাগত যুদ্ধের মাঝে কীভাবে ফের এই শহরকে গড়ে তোলা যায়, তা নিয়ে যথেষ্ট চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে জেলেনস্কি প্রশাসনকে।

জনপ্রিয় সংবাদ

ভূল অসত্য সংবাদ পরিবেশন করায় ব্যবসায়ীর  সংবাদ সম্মেলন

খারসন থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হল রাশিয়া

আপডেট টাইম : ০৬:১৮:০৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৪ নভেম্বর ২০২২

অনলাইন ডেস্ক:

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরুর দিক থেকেই খারসন অঞ্চলে আধিপত্য বজায় রেখেছিল রুশ সেনা। প্রায় ন’মাস কেটে যাওয়ার পরে সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হল রাশিয়া। শুক্রবারেই খারসন অঞ্চল পুনরুদ্ধার করতে উপস্থিত হয়েছে ইউক্রেনীয় সেনা। রুশ সেনা বিদায় নেওয়ার পরে খুশিতে মেতে উঠেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। জাতীয় সংগীত বাজিয়ে কার্যত উৎসবে মেতে উঠেছেন ইউক্রেনবাসী। প্রসঙ্গত, মাসখানেক আগেই গণভোটের মাধ্যমে খারসনকে রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন ভ্লাদিমির পুতিন। কিন্তু নিজের এই অবস্থান ধরে রাখতে পারেননি রুশ প্রেসিডেন্ট।

খারসন এলাকা থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহার করার ঘোষণা করা হয়েছিল বেশ কিছুদিন আগেই। অবশেষে শুক্রবার খারসন থেকে সমস্ত সেনা প্রত্যাহার করে নেয় রাশিয়া। তারপরেই সমগ্র খারসনের দখল নেয় ইউক্রেনীয় সেনা। নীল-হলুদ জাতীয় পতাকা উড়িয়ে, জাতীয় সংগীত বাজিয়ে সেনাকে স্বাগত জানিয়েছেন খারসনের বাসিন্দারা। দীর্ঘ সময় পরে স্বাধীনতা ফিরে পেয়ে উচ্ছ্বসিত ইউক্রেনীয়রা। তাঁদের মধ্যে একজন বলেছেন, “পুতিন আমাদের মেরে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু এই যুদ্ধ করে আসলে নিজের দেশেরই ক্ষতি করেছেন তিনি।”

দীর্ঘদিন ধরে রুশ সেনার অধীনে থাকতে গিয়ে দমবন্ধ হয়ে গিয়েছে খারসনের বাসিন্দাদের। এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, “আজকের দিনটা জীবনের সেরা দিন।” কীভাবে রুশ সেনার চোখ এড়িয়ে টানা ২০০ দিন লুকিয়ে ছিলেন, সেই কাহিনিও শুনিয়েছেন এক ব্যক্তি। দীর্ঘদিন পরে পুরোন বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে পেরেছেন। কেউ বা আবার স্বাভাবিক ভাবে বাজারে গিয়ে পছন্দের জিনিসপত্র কিনেছেন। সব মিলিয়ে উৎসবের মেজাজ গোটা খারসন জুড়ে।

তবে যুদ্ধের আঘাত সহ্য করতে গিয়ে কার্যত নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে খারসন। প্রায় ধ্বংসস্তূপ হয়ে যাওয়া শহরকে ফের গড়ে তুলতে হবে। পানীয় জল, ওষুধ, খাবার- কোনও জিনিসেরই জোগান নেই খারসনে। এই অঞ্চল ছেড়ে চলে যাওয়ার আগে যাবতীয় পরিকাঠামো ধ্বংস করে দিয়েছে রুশ সেনা, এমনটাই দাবি করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। ক্রমাগত যুদ্ধের মাঝে কীভাবে ফের এই শহরকে গড়ে তোলা যায়, তা নিয়ে যথেষ্ট চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে জেলেনস্কি প্রশাসনকে।