ঢাকা ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন  ৫২’র ভাষা শহীদদের প্রতি মিরপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছেন ডিজি ডা: মো: এমদাদুল হক তালুকদার! বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা দুই সাব-রেজিস্ট্রারের বদলী উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীল হবেন দুদক কর্মকর্তারা বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে ভূমি অফিস পরিচালনা করুন: ভূমিমন্ত্রী বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা মাগুরায় মাদরাসার সভাপতির ধমকে সুপার অজ্ঞান  মাগুরায় সাকিবের পৃষ্ঠপোষকতায় মহান একুশ উপলক্ষে শহরে আলপনার উদ্যোগ 

ভেঙে ফেলা হচ্ছে এরশাদ শিকদারের ‘স্বর্ণকমল

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এরশাদ শিকদারের মেজ ছেলে কামাল শিকদার বলেন, তাঁদের বাড়িটি ১০ কাঠা জমির ওপর বানানো। বাড়ির একটি অংশ তিনতলা পুরোনো ভবন ও অন্য অংশটি দোতলা। কয়েক দিন আগে পুরোনো তিনতলা ভবনটি শ্রমিক দিয়ে ভেঙে ফেলা হয়েছে। এখন দোতলা ভবনটির অর্ধেকের মতো অংশ ভাঙা হচ্ছে। ওই ভাঙা অংশ কোনো ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে বহুতল ভবন তৈরির পরিকল্পনা করছেন তাঁরা।

সম্প্রতি ওই বাড়ির সামনে গিয়ে দেখা যায়, দোতলা ভবনের ওপরের অংশ ভাঙার কাজ করছেন শ্রমিকেরা। একসময় বাড়ির প্রধান ফটকের সামনে নামফলক ছিল, সেটি খুলে ফেলা হয়েছে। বাড়ির সামনে উৎসুক লোকজন দাঁড়িয়ে বাড়ি ভাঙার কাজ দেখছেন।
এরশাদ শিকদার ৬০টির বেশি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে প্রচলিত আছে। তবে ২৪ হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছিলেন তাঁর দেহরক্ষী নুরে আলম। ২০০৪ সালের ১০ মে মধ্যরাতে খুলনা জেলা কারাগারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে এরশাদ শিকদারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

এরশাদ শিকদারের জন্ম ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার মাদারঘোনা গ্রামে। তাঁর বাবা ছিলেন বন্দে আলী শিকদার। আট ভাইবোনের মধ্যে এরশাদ শিকদার ছিলেন দ্বিতীয়। ১৯৬৭ সালে জন্মস্থান নলছিটি ছেড়ে খুলনায় চলে আসেন। ঘাঁটি গাড়েন ৫ নম্বর ঘাট এলাকায়। আশির দশকে নিয়ন্ত্রণ নেন রেলস্টেশন, ৪ ও ৫ নম্বর ঘাট এলাকার। এরপর তাঁর সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড শুরু হয়।

১৯৮২ সালে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেওয়ার মাধ্যমে রাজনীতিতে যুক্ত হন এরশাদ শিকদার। ১৯৮৮ সালের নির্বাচনে তিনি তৎকালীন ৮ নম্বর ওয়ার্ডের (বর্তমান ২১ নম্বর ওয়ার্ড) কমিশনার নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে বিএনপি সরকার গঠনের পর তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। ১৯৯৭ সালের ২৬ ডিসেম্বর তিনি আবারও দল পরিবর্তন করেন। এবার যোগ দেন আওয়ামী লীগে। সমালোচনার মুখে কিছুদিন পরই আওয়ামী লীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। ১৯৯৯ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার সময় তিনি ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার ছিলেন।

ট্যাগস

মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

ভেঙে ফেলা হচ্ছে এরশাদ শিকদারের ‘স্বর্ণকমল

আপডেট টাইম : ০৫:১০:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৫ জানুয়ারী ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এরশাদ শিকদারের মেজ ছেলে কামাল শিকদার বলেন, তাঁদের বাড়িটি ১০ কাঠা জমির ওপর বানানো। বাড়ির একটি অংশ তিনতলা পুরোনো ভবন ও অন্য অংশটি দোতলা। কয়েক দিন আগে পুরোনো তিনতলা ভবনটি শ্রমিক দিয়ে ভেঙে ফেলা হয়েছে। এখন দোতলা ভবনটির অর্ধেকের মতো অংশ ভাঙা হচ্ছে। ওই ভাঙা অংশ কোনো ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে বহুতল ভবন তৈরির পরিকল্পনা করছেন তাঁরা।

সম্প্রতি ওই বাড়ির সামনে গিয়ে দেখা যায়, দোতলা ভবনের ওপরের অংশ ভাঙার কাজ করছেন শ্রমিকেরা। একসময় বাড়ির প্রধান ফটকের সামনে নামফলক ছিল, সেটি খুলে ফেলা হয়েছে। বাড়ির সামনে উৎসুক লোকজন দাঁড়িয়ে বাড়ি ভাঙার কাজ দেখছেন।
এরশাদ শিকদার ৬০টির বেশি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে প্রচলিত আছে। তবে ২৪ হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছিলেন তাঁর দেহরক্ষী নুরে আলম। ২০০৪ সালের ১০ মে মধ্যরাতে খুলনা জেলা কারাগারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে এরশাদ শিকদারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

এরশাদ শিকদারের জন্ম ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার মাদারঘোনা গ্রামে। তাঁর বাবা ছিলেন বন্দে আলী শিকদার। আট ভাইবোনের মধ্যে এরশাদ শিকদার ছিলেন দ্বিতীয়। ১৯৬৭ সালে জন্মস্থান নলছিটি ছেড়ে খুলনায় চলে আসেন। ঘাঁটি গাড়েন ৫ নম্বর ঘাট এলাকায়। আশির দশকে নিয়ন্ত্রণ নেন রেলস্টেশন, ৪ ও ৫ নম্বর ঘাট এলাকার। এরপর তাঁর সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড শুরু হয়।

১৯৮২ সালে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেওয়ার মাধ্যমে রাজনীতিতে যুক্ত হন এরশাদ শিকদার। ১৯৮৮ সালের নির্বাচনে তিনি তৎকালীন ৮ নম্বর ওয়ার্ডের (বর্তমান ২১ নম্বর ওয়ার্ড) কমিশনার নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে বিএনপি সরকার গঠনের পর তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। ১৯৯৭ সালের ২৬ ডিসেম্বর তিনি আবারও দল পরিবর্তন করেন। এবার যোগ দেন আওয়ামী লীগে। সমালোচনার মুখে কিছুদিন পরই আওয়ামী লীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। ১৯৯৯ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার সময় তিনি ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার ছিলেন।