ঢাকা ১১:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন  ৫২’র ভাষা শহীদদের প্রতি মিরপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছেন ডিজি ডা: মো: এমদাদুল হক তালুকদার! বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা দুই সাব-রেজিস্ট্রারের বদলী উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীল হবেন দুদক কর্মকর্তারা বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে ভূমি অফিস পরিচালনা করুন: ভূমিমন্ত্রী বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা মাগুরায় মাদরাসার সভাপতির ধমকে সুপার অজ্ঞান  মাগুরায় সাকিবের পৃষ্ঠপোষকতায় মহান একুশ উপলক্ষে শহরে আলপনার উদ্যোগ 

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ অমান্যের অভিযোগ!

স্টাফ রিপোর্টার :

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ অমান্যের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগটি করেছেন হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়েরকারী নৌযান মালিক মিজানুর রহমান ।
অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, বিধি বর্হিভুতভাবে কোন প্রকার গেজেট প্রকাশ ব্যতিত নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক কমডোর মোঃ নিজামুল হক স্বাক্ষরিত ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ইং তারিখে সার্ভেয়ার এর কার্য পরিধির এলাকা নির্ধারণ প্রসঙ্গে একটি সার্কুলার জারি করেন৷ ওই পত্র জারি করার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন মিজানুর রহমান নামে একজন নৌযান মালিক৷রিট নং ৩৮৯৬/২০২৩।এই রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ০৬ এপ্রিল ২০২৩ ইং তারিখে ডিজি শিপিং এর জারিকৃত সকল প্রকার অবৈধ ও অযৌক্তিক সার্কুলার এর উপর ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ প্রদান করে৷ হাইকোর্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিকের নেতৃত্বে এই রিট পিটিশন দায়ের করা হয়৷ রিটের বিবাদী হিসাবে রয়েছেন নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব, নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর মহা পরিচালক ও প্রধান প্রকৌশলী।
৬ এপ্রিল স্থগিতাদেশ প্রদান করা হলেও মহাপরিচালক হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশ নির্দেশ অনুসরণ করেন নি৷ বরং অদ্যাবধি জারিকৃত সার্কুলার স্থগিত না করে তার মন মাফিক অফিস পরিচালনা করছেন৷ এরই প্রেক্ষিতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন রিটকারী ও অন্যান্য নৌযান মালিকগণ৷
সাধারণ নৌযান মালকরা মনে করছেন, ডিজি শিপিং এর ডিজি হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশ নির্দেশ পালন না করে আদালতের আদেশ অমান্য বা অবমাননা করছেন৷ আদালত অবমাননার জন্য সাধারণ নৌযান মালিক ও সেবা প্রার্থীরা ডিজি শিপিং এর ডিজি ও চীফ ইঞ্জিনিয়ার এর শাস্তির দাবি করছেন। মহাপরিচালক এর চতুর্মুখী দুর্নীতির মনোভাব ও ব্যক্তিগত লোকদের সুবিধা পাইয়ের দেয়ার জন্য ইতিমধ্যেই তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ দায়ের ও একাধিক দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ ছাপা হয়েছে৷
নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর বাতিঘর প্রকল্পে অবৈধভাবে সাব কন্ট্রাক্টর নিয়োগ প্রদান করে ডিজি তার ব্যক্তিগত লোকদের সুবিধা দিতে চাচ্ছেন। এ নিয়ে প্রকল্প পরিচালক ও কোরিয়ান কোম্পানির সাথে বিরোধের সৃষ্টি হয়েছে৷ নিজ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ইজিএমএনেসাই প্রকল্পের পরিচালক ও কোরিয়ান কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন মহাপরিচালক। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মহা পরিচালক খোদ দুর্নীতির করার জন্য তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া অভিযোগ করেন। মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যেই মহাপরিচালক এর এহেন ঘৃন্য কর্মকান্ডের সত্যতা পেয়েছে।
নৌযান মালিকরা মনে করেনম মহাপরিচালক হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করায় তিনি আদালত অবমাননার অপরাধ করেছেন। এ ক্ষেত্রে তারা সংশ্লিষ্ট আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
এই বিষয়ে কথা বলার জন্য নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর মোঃ নিজামুল হকের অফিসে ফোন করলে তার পিএ বলেন,স্যার মন্ত্রণালয়ে মিটিং এ আছেন।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ অমান্যের অভিযোগ!

আপডেট টাইম : ১২:০৯:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার :

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ অমান্যের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগটি করেছেন হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়েরকারী নৌযান মালিক মিজানুর রহমান ।
অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, বিধি বর্হিভুতভাবে কোন প্রকার গেজেট প্রকাশ ব্যতিত নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক কমডোর মোঃ নিজামুল হক স্বাক্ষরিত ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ইং তারিখে সার্ভেয়ার এর কার্য পরিধির এলাকা নির্ধারণ প্রসঙ্গে একটি সার্কুলার জারি করেন৷ ওই পত্র জারি করার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন মিজানুর রহমান নামে একজন নৌযান মালিক৷রিট নং ৩৮৯৬/২০২৩।এই রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ০৬ এপ্রিল ২০২৩ ইং তারিখে ডিজি শিপিং এর জারিকৃত সকল প্রকার অবৈধ ও অযৌক্তিক সার্কুলার এর উপর ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ প্রদান করে৷ হাইকোর্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিকের নেতৃত্বে এই রিট পিটিশন দায়ের করা হয়৷ রিটের বিবাদী হিসাবে রয়েছেন নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব, নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর মহা পরিচালক ও প্রধান প্রকৌশলী।
৬ এপ্রিল স্থগিতাদেশ প্রদান করা হলেও মহাপরিচালক হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশ নির্দেশ অনুসরণ করেন নি৷ বরং অদ্যাবধি জারিকৃত সার্কুলার স্থগিত না করে তার মন মাফিক অফিস পরিচালনা করছেন৷ এরই প্রেক্ষিতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন রিটকারী ও অন্যান্য নৌযান মালিকগণ৷
সাধারণ নৌযান মালকরা মনে করছেন, ডিজি শিপিং এর ডিজি হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশ নির্দেশ পালন না করে আদালতের আদেশ অমান্য বা অবমাননা করছেন৷ আদালত অবমাননার জন্য সাধারণ নৌযান মালিক ও সেবা প্রার্থীরা ডিজি শিপিং এর ডিজি ও চীফ ইঞ্জিনিয়ার এর শাস্তির দাবি করছেন। মহাপরিচালক এর চতুর্মুখী দুর্নীতির মনোভাব ও ব্যক্তিগত লোকদের সুবিধা পাইয়ের দেয়ার জন্য ইতিমধ্যেই তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ দায়ের ও একাধিক দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ ছাপা হয়েছে৷
নৌ পরিবহন অধিদপ্তর এর বাতিঘর প্রকল্পে অবৈধভাবে সাব কন্ট্রাক্টর নিয়োগ প্রদান করে ডিজি তার ব্যক্তিগত লোকদের সুবিধা দিতে চাচ্ছেন। এ নিয়ে প্রকল্প পরিচালক ও কোরিয়ান কোম্পানির সাথে বিরোধের সৃষ্টি হয়েছে৷ নিজ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ইজিএমএনেসাই প্রকল্পের পরিচালক ও কোরিয়ান কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন মহাপরিচালক। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মহা পরিচালক খোদ দুর্নীতির করার জন্য তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া অভিযোগ করেন। মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যেই মহাপরিচালক এর এহেন ঘৃন্য কর্মকান্ডের সত্যতা পেয়েছে।
নৌযান মালিকরা মনে করেনম মহাপরিচালক হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করায় তিনি আদালত অবমাননার অপরাধ করেছেন। এ ক্ষেত্রে তারা সংশ্লিষ্ট আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
এই বিষয়ে কথা বলার জন্য নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর মোঃ নিজামুল হকের অফিসে ফোন করলে তার পিএ বলেন,স্যার মন্ত্রণালয়ে মিটিং এ আছেন।