ঢাকা ০৬:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বাড্ডা থানার অপরাধীদের আতঙ্কের নাম ওসি ইয়াসীন গাজী কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা’র নেতৃত্বে সাজ্জাদ-মোশাররফ স্বামীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে থানায় স্ত্রীর আত্মসমর্পণ কোটালীপাড়ায় তিন দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলার উদ্বোধন বেইলি রোডে আগুনে নিহত ৪৬ জয়পুরহাটে ৭ মামলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী অস্ত্র ও মাদকসহ র‍্যাবের জালে আটক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিম উদ্দিনের কোলে শিশু মো. লাকিত হোসেন ধর্ষণ মামলার প্রধান একমাত্র পলাতক আসামি অবশেষে আটক মির্জাগঞ্জে দরিদ্র এক নিঃসন্তান বৃদ্ধের খড়ের গাদায় অগ্নিকাণ্ড

থানায় আটকে নির্যাতন, ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ

শরীয়তপুর প্রতিনিধি :

শরীয়তপুরে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পাওয়া দুই আসামিকে থানায় আটকে রেখে নির্যাতন করে ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। গত ২ জুন ভুক্তভোগী বকুল চোকদারের বড় ভাই আবু জাফর ঠান্ডু জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ অভিযোগ পেয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন এসপি।

অভিযুক্তরা হলেন শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। বকুল ছাড়া অপর ভুক্তভোগী হলেন সাদ্দাম চোকদার। তারা শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা আহম্মেদ চোকদার কান্দি এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ, ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ মে দ্রুত বিচার আইনে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। মামলায় সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। সেই মামলার তিন আসামি গত ২৯ মে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান। জামিন পাওয়ার পর ৩০ মে রাতে সাদ্দাম, বকুলসহ আসামি সাইদুল শেখ, আনোয়ারকে নিয়ে ঢাকা কেরানীগঞ্জ সাদ্দামের বন্ধু আলমগীর চোকদারের বাসায় যান।

ওই দিন রাতে তথ্য পেয়ে সেই বাসায় হাজির হন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির, ওসি মোস্তাফিজুর রহমান, জাজিরা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল বেপারীসহ ১০-১২ জন পুলিশ সদস্য। সাদ্দাম তাদের জামিনের কাগজ দেখানো মাত্র তা ছিঁড়ে ফেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল। পরে সাদ্দাম ও বকুলকে লাথি, কিল-ঘুসি, চড়-থাপ্পড়সহ লাঠি, কাঠ, হাতুড়ি দিয়ে বেধড়ক মারধর করতে থাকেন তারা। একপর্যায়ে প্লাইয়ার্স দিয়ে তাদের হাত ও পায়ের নখ তুলে ফেলেন। নির্যাতন চলে রাত ১টা থেকে পরের দিন ৩১ মে সকাল ৮টা পর্যন্ত।

কিছুক্ষণ পর ওই চারজনকে গামছা ও কালো কাপড় দিয়ে চোখ বেঁধে গাড়িতে করে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর নিচে আনা হয়। পরে সাদ্দাম-বকুল ও সাইদুল-আনোয়ারকে দুই স্থানে নেওয়া হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি সাদ্দাম-বকুলকে বলেন, ‘সাইদুল-আনোয়ারকে ক্রসফায়ার দিয়ে দিয়েছি। তোরা ৭২ লাখ টাকা দিবি, তা না হলে তোদেরও ক্রসফায়ার করা হবে।’

এভাবে সারা দিন রেখে বকুল-সাদ্দামকে রাতে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় আনা হয়। পরে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে বেত ও কাঠ, কোদালের বাট, লাঠি দিয়ে আবার বেধড়ক মারতে থাকেন সাদ্দাম ও বকুলকে। সারা রাত চলে এ নির্যাতন। টাকার জন্য বকুলের স্ত্রী সনজিদা, দুই বছরের সন্তান, বাবা রশিদ চোকদার, মা রমেলা ও চাচাতো ভাই আবু জাফর ঠান্ডুকে থানায় এনে সারা রাত আটকে রাখেন এবং শারীরিক নির্যাতন করেন তারা।

পরে বকুল ও সাদ্দামের আত্মীয়স্বজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসির কাছে পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দিলে নির্যাতন থেকে মুক্তি পান তারা। এই দুই দিনে যন্ত্রণায় তারা চিৎকার করলেও তাদের খাবার ও ওষুধ দেয়নি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি। ১ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনকে শরীয়তপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে পুলিশ পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রিমান্ড নামঞ্জুর করেন। ৬ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনই আদালত থেকে জামিন পান।

ছিনতাই মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২১ মে দুপুরে পদ্মা সেতু জাজিরা প্রান্তের নাওডোবা এলাকার এক্সপ্রেসওয়ের সোহাগ পরিবহন থেকে জাজিরা উপজেলার বাসিন্দা শাহীন আলম শেখ (২০) ও সেকেন্দার মাদবরকে (৫১) জোরপূর্বকভাবে নামিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা ডলার, মোবাইল ফোনসহ অন্য জিনিসপত্র নিয়ে যান সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ ১০-১১ জন। এ ঘটনায় ২৩ মে শাহীন আলম শেখ বাদী হয়ে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় সাদ্দাম ও বকুলসহ নয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫-৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

ভুক্তভোগী সাদ্দাম চোকদার ও বকুল চোকদার বলেন, তাদের নয়জনের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। সেই মামলায় তারা তিনজন হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। তবুও তাদের থানায় ও একটি বাড়িতে আটকে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন নড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান। তারা পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসিকে।

এ ব্যাপারে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘ছিনতাই মামলার বাদীপক্ষ তাদের মারধর করেছে। এ বিষয়ে আমার সম্পৃক্ততা নেই। চেকের বিষয়েও আমার জানা নেই।’

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনিরের বক্তব্যের বারবার মোবাইল ফোনে কল করলেন তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. সাইফুল হক বলেন, ‘গত ২৩ মে পদ্মা দক্ষিণ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা হয়। এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে পরে কিছু ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে গত মঙ্গলবার তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ওসি মোস্তাফিজুর রহমানকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ট্যাগস

ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে

থানায় আটকে নির্যাতন, ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ

আপডেট টাইম : ০৪:৫৮:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ জুন ২০২৩

শরীয়তপুর প্রতিনিধি :

শরীয়তপুরে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পাওয়া দুই আসামিকে থানায় আটকে রেখে নির্যাতন করে ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। গত ২ জুন ভুক্তভোগী বকুল চোকদারের বড় ভাই আবু জাফর ঠান্ডু জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ অভিযোগ পেয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন এসপি।

অভিযুক্তরা হলেন শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। বকুল ছাড়া অপর ভুক্তভোগী হলেন সাদ্দাম চোকদার। তারা শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা আহম্মেদ চোকদার কান্দি এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ, ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ মে দ্রুত বিচার আইনে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। মামলায় সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। সেই মামলার তিন আসামি গত ২৯ মে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান। জামিন পাওয়ার পর ৩০ মে রাতে সাদ্দাম, বকুলসহ আসামি সাইদুল শেখ, আনোয়ারকে নিয়ে ঢাকা কেরানীগঞ্জ সাদ্দামের বন্ধু আলমগীর চোকদারের বাসায় যান।

ওই দিন রাতে তথ্য পেয়ে সেই বাসায় হাজির হন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির, ওসি মোস্তাফিজুর রহমান, জাজিরা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল বেপারীসহ ১০-১২ জন পুলিশ সদস্য। সাদ্দাম তাদের জামিনের কাগজ দেখানো মাত্র তা ছিঁড়ে ফেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল। পরে সাদ্দাম ও বকুলকে লাথি, কিল-ঘুসি, চড়-থাপ্পড়সহ লাঠি, কাঠ, হাতুড়ি দিয়ে বেধড়ক মারধর করতে থাকেন তারা। একপর্যায়ে প্লাইয়ার্স দিয়ে তাদের হাত ও পায়ের নখ তুলে ফেলেন। নির্যাতন চলে রাত ১টা থেকে পরের দিন ৩১ মে সকাল ৮টা পর্যন্ত।

কিছুক্ষণ পর ওই চারজনকে গামছা ও কালো কাপড় দিয়ে চোখ বেঁধে গাড়িতে করে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর নিচে আনা হয়। পরে সাদ্দাম-বকুল ও সাইদুল-আনোয়ারকে দুই স্থানে নেওয়া হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি সাদ্দাম-বকুলকে বলেন, ‘সাইদুল-আনোয়ারকে ক্রসফায়ার দিয়ে দিয়েছি। তোরা ৭২ লাখ টাকা দিবি, তা না হলে তোদেরও ক্রসফায়ার করা হবে।’

এভাবে সারা দিন রেখে বকুল-সাদ্দামকে রাতে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় আনা হয়। পরে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে বেত ও কাঠ, কোদালের বাট, লাঠি দিয়ে আবার বেধড়ক মারতে থাকেন সাদ্দাম ও বকুলকে। সারা রাত চলে এ নির্যাতন। টাকার জন্য বকুলের স্ত্রী সনজিদা, দুই বছরের সন্তান, বাবা রশিদ চোকদার, মা রমেলা ও চাচাতো ভাই আবু জাফর ঠান্ডুকে থানায় এনে সারা রাত আটকে রাখেন এবং শারীরিক নির্যাতন করেন তারা।

পরে বকুল ও সাদ্দামের আত্মীয়স্বজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসির কাছে পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দিলে নির্যাতন থেকে মুক্তি পান তারা। এই দুই দিনে যন্ত্রণায় তারা চিৎকার করলেও তাদের খাবার ও ওষুধ দেয়নি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি। ১ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনকে শরীয়তপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে পুলিশ পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রিমান্ড নামঞ্জুর করেন। ৬ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনই আদালত থেকে জামিন পান।

ছিনতাই মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২১ মে দুপুরে পদ্মা সেতু জাজিরা প্রান্তের নাওডোবা এলাকার এক্সপ্রেসওয়ের সোহাগ পরিবহন থেকে জাজিরা উপজেলার বাসিন্দা শাহীন আলম শেখ (২০) ও সেকেন্দার মাদবরকে (৫১) জোরপূর্বকভাবে নামিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা ডলার, মোবাইল ফোনসহ অন্য জিনিসপত্র নিয়ে যান সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ ১০-১১ জন। এ ঘটনায় ২৩ মে শাহীন আলম শেখ বাদী হয়ে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় সাদ্দাম ও বকুলসহ নয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫-৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

ভুক্তভোগী সাদ্দাম চোকদার ও বকুল চোকদার বলেন, তাদের নয়জনের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। সেই মামলায় তারা তিনজন হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। তবুও তাদের থানায় ও একটি বাড়িতে আটকে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন নড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান। তারা পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসিকে।

এ ব্যাপারে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘ছিনতাই মামলার বাদীপক্ষ তাদের মারধর করেছে। এ বিষয়ে আমার সম্পৃক্ততা নেই। চেকের বিষয়েও আমার জানা নেই।’

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনিরের বক্তব্যের বারবার মোবাইল ফোনে কল করলেন তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. সাইফুল হক বলেন, ‘গত ২৩ মে পদ্মা দক্ষিণ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা হয়। এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে পরে কিছু ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে গত মঙ্গলবার তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ওসি মোস্তাফিজুর রহমানকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’