বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৪:১৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নিয়োগকালেও বয়স জালিয়াতি: বিআইডব্লিউটিএর হিসাব সহকারীর কোটি-কোটি টাকার সম্পদ! জাতির পিতার ছবি অবমাননাকারী পেলেন জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার! কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার কুষ্টিয়া প্রেস ক্লাব কেপিসি’র নবনির্বাচিত পরিষদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ হাতজোড় করে ক্ষমা চেয়ে দেশ ছেড়েছেন শামীম ওসমান ডিএমপি কমিশনারকে অবসর দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি আ.লীগ কোনো ভিসানীতির পরোয়া করে না: ওবায়দুল কাদের আগামীতে গণমাধ্যমও ভিসানীতিতে যুক্ত হবে: পিটার হাস কুয়েতে বাংলাদেশিকে হত্যা, গ্রেপ্তার ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান সরোয়ারের বাড়িতে স্ত্রী স্বীকৃতির দাবি নিয়ে কৃষি কর্মকর্তা মুক্তা
থানায় আটকে নির্যাতন, ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ

থানায় আটকে নির্যাতন, ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির ও ওসি শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান ( বাঁ থেকে)

শরীয়তপুর প্রতিনিধি :

শরীয়তপুরে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পাওয়া দুই আসামিকে থানায় আটকে রেখে নির্যাতন করে ৭২ লাখ টাকার চেক লিখে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। গত ২ জুন ভুক্তভোগী বকুল চোকদারের বড় ভাই আবু জাফর ঠান্ডু জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ অভিযোগ পেয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন এসপি।

অভিযুক্তরা হলেন শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। বকুল ছাড়া অপর ভুক্তভোগী হলেন সাদ্দাম চোকদার। তারা শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা আহম্মেদ চোকদার কান্দি এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ, ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ মে দ্রুত বিচার আইনে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। মামলায় সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। সেই মামলার তিন আসামি গত ২৯ মে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান। জামিন পাওয়ার পর ৩০ মে রাতে সাদ্দাম, বকুলসহ আসামি সাইদুল শেখ, আনোয়ারকে নিয়ে ঢাকা কেরানীগঞ্জ সাদ্দামের বন্ধু আলমগীর চোকদারের বাসায় যান।

ওই দিন রাতে তথ্য পেয়ে সেই বাসায় হাজির হন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির, ওসি মোস্তাফিজুর রহমান, জাজিরা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল বেপারীসহ ১০-১২ জন পুলিশ সদস্য। সাদ্দাম তাদের জামিনের কাগজ দেখানো মাত্র তা ছিঁড়ে ফেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল। পরে সাদ্দাম ও বকুলকে লাথি, কিল-ঘুসি, চড়-থাপ্পড়সহ লাঠি, কাঠ, হাতুড়ি দিয়ে বেধড়ক মারধর করতে থাকেন তারা। একপর্যায়ে প্লাইয়ার্স দিয়ে তাদের হাত ও পায়ের নখ তুলে ফেলেন। নির্যাতন চলে রাত ১টা থেকে পরের দিন ৩১ মে সকাল ৮টা পর্যন্ত।

কিছুক্ষণ পর ওই চারজনকে গামছা ও কালো কাপড় দিয়ে চোখ বেঁধে গাড়িতে করে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর নিচে আনা হয়। পরে সাদ্দাম-বকুল ও সাইদুল-আনোয়ারকে দুই স্থানে নেওয়া হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি সাদ্দাম-বকুলকে বলেন, ‘সাইদুল-আনোয়ারকে ক্রসফায়ার দিয়ে দিয়েছি। তোরা ৭২ লাখ টাকা দিবি, তা না হলে তোদেরও ক্রসফায়ার করা হবে।’

এভাবে সারা দিন রেখে বকুল-সাদ্দামকে রাতে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় আনা হয়। পরে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে বেত ও কাঠ, কোদালের বাট, লাঠি দিয়ে আবার বেধড়ক মারতে থাকেন সাদ্দাম ও বকুলকে। সারা রাত চলে এ নির্যাতন। টাকার জন্য বকুলের স্ত্রী সনজিদা, দুই বছরের সন্তান, বাবা রশিদ চোকদার, মা রমেলা ও চাচাতো ভাই আবু জাফর ঠান্ডুকে থানায় এনে সারা রাত আটকে রাখেন এবং শারীরিক নির্যাতন করেন তারা।

পরে বকুল ও সাদ্দামের আত্মীয়স্বজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসির কাছে পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দিলে নির্যাতন থেকে মুক্তি পান তারা। এই দুই দিনে যন্ত্রণায় তারা চিৎকার করলেও তাদের খাবার ও ওষুধ দেয়নি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি। ১ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনকে শরীয়তপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে পুলিশ পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রিমান্ড নামঞ্জুর করেন। ৬ জুন বিকেলে সাদ্দাম ও বকুলসহ চারজনই আদালত থেকে জামিন পান।

ছিনতাই মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২১ মে দুপুরে পদ্মা সেতু জাজিরা প্রান্তের নাওডোবা এলাকার এক্সপ্রেসওয়ের সোহাগ পরিবহন থেকে জাজিরা উপজেলার বাসিন্দা শাহীন আলম শেখ (২০) ও সেকেন্দার মাদবরকে (৫১) জোরপূর্বকভাবে নামিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা ডলার, মোবাইল ফোনসহ অন্য জিনিসপত্র নিয়ে যান সাদ্দাম চোকদার, বকুল চোকদারসহ ১০-১১ জন। এ ঘটনায় ২৩ মে শাহীন আলম শেখ বাদী হয়ে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় সাদ্দাম ও বকুলসহ নয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫-৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

ভুক্তভোগী সাদ্দাম চোকদার ও বকুল চোকদার বলেন, তাদের নয়জনের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় একটি ছিনতাই মামলা হয়। সেই মামলায় তারা তিনজন হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। তবুও তাদের থানায় ও একটি বাড়িতে আটকে ৭২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন নড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল মনির ও পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান। তারা পাঁচটি চেকের মাধ্যমে ৭২ লাখ টাকার চেক দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসিকে।

এ ব্যাপারে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘ছিনতাই মামলার বাদীপক্ষ তাদের মারধর করেছে। এ বিষয়ে আমার সম্পৃক্ততা নেই। চেকের বিষয়েও আমার জানা নেই।’

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) রাসেল মনিরের বক্তব্যের বারবার মোবাইল ফোনে কল করলেন তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. সাইফুল হক বলেন, ‘গত ২৩ মে পদ্মা দক্ষিণ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা হয়। এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে পরে কিছু ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে গত মঙ্গলবার তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ওসি মোস্তাফিজুর রহমানকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved 2018-2022 khoborbangladesh.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com