ঢাকা ০৩:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত ৫ বছরের অধিক প্রেষনে দায়িত্ব পালন করছেন চীফ ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল কবীর! বিআইডব্লিউটিএর অতি: পরিচালক আরিফ উদ্দিনের সম্পদের পাহাড়! শাহআলীতে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যাকারি পলাতক স্বামী গ্রেফতার  অতি:পরিচালক আরিফ উদ্দিন এখন বিআইডব্লিউটিএ‘র অঘোষিত “রাজা”! সাভারে এক ইউপি চেয়ারম্যানের সম্পদের পাহাড়! সিরাজদিখানে মঈনুল হাসান নাহিদকে বিকল্প ধরার সমর্থন মির্জাগঞ্জের ইউ,পি সচিব পরকীয়া প্রেমিকার হত্যাকাণ্ডে পুলিশ হেফাজতে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় মানুষের ভালবাসায় আমি মুগ্ধ: চেয়ারম্যান প্রার্থী পলাশ মানবতার আড়ালে ভয়ংকর ফয়সাল বাহিনী, পিস্তল ঠেকিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

ত্রিশালে চরিত্রহীন শিক্ষককে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে ইমামকে লাঞ্চিত করলো কমিটি!

ময়মনসিংহ  প্রতিনিধি :

ময়মনসিংহের ত্রিশালের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ মাদ্রাসার দুশ্চরিত্র শিক্ষক তালহাকে আবার মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে মসজিদের ইমাম ও খতিবকে লাঞ্চিত করেছে মসজিদ কমিটির কতিপয় অযোগ্য, রাজনৈতিক আশ্রয়ে পালিত সদস্য। নারীদের সাথে পরকীয়া ও অশ্লীল চ্যাট ও ভিডিও কলের অভিযোগে মাদ্রাসা থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত হয়েছিলেন মাদ্রাসা শিক্ষক তালহা। চরিত্রহীন শিক্ষক তালহাকে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে মরিয়া হয়ে পড়ে মসজিদ মাদ্রাসার কতিপয় অশিক্ষিত অযোগ্য সদস্যরা। সূত্রে জানা যায়, কমিটির একাংশ দীর্ঘদিন ধরেই ত্রিশাল কেন্দ্রীয় মসজিদ, মাদ্রাসা ও মসজিদের ইমাম এর বিরোধিতা করে আসছিলেন৷ স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ত্রিশাল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম মুফতি মুফাজ্জল হক একজন অভিজ্ঞ, দ্বীনদার, পরহেজগার আলেম।

তার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছিলো কিছু আলেম বিদ্বেষী লোকজন৷ তারই প্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার অনির্ধারিত এক মিটিং এ কমিটির সভাপতির নেতৃত্বে কতিপয় উশৃংখল সদস্যরা মুফতি মুফাজ্জলকে অপমান লাঞ্চিত করতে থাকেন৷ চরিত্রহীন শিক্ষক তালহাকে ফিরিয়ে আনা ও ইমামকে লাঞ্চিত করার পিছনে কলকাঠি নাড়েন স্থানীয় পৌর মেয়র ও বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এ বি এম আনিছুজ্জামান ও বি এন পি নেতা জয়নাল আবেদীন। একজন লম্পট শিক্ষক কে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনার তাদের এই মরিয়া চেষ্টাই স্থানীয় তৌহিদী জনতা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন৷ স্থানীয় তৌহিদী জনতারা বলছেন, পৌর মেয়র আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চান। উনার এরকম কর্মকান্ড ভোটের মাঠে প্রভাব ফেলবে৷ একজন প্রভাবশালী, জনপ্রিয় আলেমকে হেনস্তার অভিযোগ প্রচার হলে উনি কোনভাবেই সাধারণ জনগনের কাছে পৌছাতে পারবেন না৷ অপরদিকে বি এন পি নেতা জয়নাল আবেদীনের ব্যাপারেও একই মত দেন সাধারন মুসল্লীরা৷ তারা মনে করেন, রাজনৈতিক পদ প্রত্যাশী ব্যক্তিরা এরকম জনবিরোধী কাজে সম্পৃক্ত থাকলে ভোটের মাঠে তারা সফল হতে পারবেন না৷

ত্রিশালের এই জামিয়াতুস সাহাবা মাদ্রাসা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন ঝামেলা চলে আসছিলো৷ মসজিদের ইমাম স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয় হওয়ায় কুচক্রীমহল সব সময় ব্যর্থ হয়৷ কিন্তু গত শনিবার তারা জোটবদ্ধ হয়ে সভাপতি আব্দুর রউফের নেতৃত্বে সদস্যা দীপক, শাহজাহান, নূর মোহাম্মদ আরোও অনেকে ইমামের উপর চড়াও হন৷ এক পর্যায়ে তারা নিরীহ ইমামকে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করার চেষ্টা করেন৷ সহ সভাপতি আতাউর রহমান শামীম তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন৷ এ বিষয়ে লাঞ্চিত ইমাম লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমি মাওলানা মুফাজ্জল হক, দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ ত্রিশাল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি। ত্রিশালের ধর্ম প্রাণ মুসল্লী একজন ইসলামের নগন্য খাদেম হিসাবে আমাকে সম্মান দিয়েছেন। কিন্তু দ্বীন শরিয়তের কথা প্রচার ও মানতে বলায় বিভিন্ন সময় আমার প্রতি কতিপয় পথভ্রষ্ট লোকজন অপপ্রচার ও অভিযোগ করে আসছিলেন। কখনোই আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমান করতে পারেন নি৷

কিন্তু একজন চরিত্রহীন, জিনাকারী শিক্ষকের পক্ষাবলম্বন করে তারা আমাকে হেনস্তা ও অপমানিত করেছেন। আমি এর বিচার আল্লাহর কাছে দিয়েছি৷ দুনিয়া ও আখিরাতের বিচার অবশ্যই তাদের প্রাপ্য। আমি মানসিকভাবে খুবই অসুস্থ এখন। স্বাভাবিক চলাফেরায় মনোনিবেশ করতে পারছি না। যারাই আমার প্রতি অবিবেচকের মতো অভিযোগ দায়ের করেছে এবং যারা আমাকে লাঞ্চিত করেছে তাদেরকেও আল্লাহ দুনিয়া ও আখিরাতে লাঞ্চিত করবে বলে আমি মনে করি। উপস্থিত সাধারণ মুসল্লীরা মসজিদ কমিটির পদত্যাগ ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত

ত্রিশালে চরিত্রহীন শিক্ষককে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে ইমামকে লাঞ্চিত করলো কমিটি!

আপডেট টাইম : ০৫:২৩:১০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০২৩

ময়মনসিংহ  প্রতিনিধি :

ময়মনসিংহের ত্রিশালের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ মাদ্রাসার দুশ্চরিত্র শিক্ষক তালহাকে আবার মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে মসজিদের ইমাম ও খতিবকে লাঞ্চিত করেছে মসজিদ কমিটির কতিপয় অযোগ্য, রাজনৈতিক আশ্রয়ে পালিত সদস্য। নারীদের সাথে পরকীয়া ও অশ্লীল চ্যাট ও ভিডিও কলের অভিযোগে মাদ্রাসা থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত হয়েছিলেন মাদ্রাসা শিক্ষক তালহা। চরিত্রহীন শিক্ষক তালহাকে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে মরিয়া হয়ে পড়ে মসজিদ মাদ্রাসার কতিপয় অশিক্ষিত অযোগ্য সদস্যরা। সূত্রে জানা যায়, কমিটির একাংশ দীর্ঘদিন ধরেই ত্রিশাল কেন্দ্রীয় মসজিদ, মাদ্রাসা ও মসজিদের ইমাম এর বিরোধিতা করে আসছিলেন৷ স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ত্রিশাল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম মুফতি মুফাজ্জল হক একজন অভিজ্ঞ, দ্বীনদার, পরহেজগার আলেম।

তার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছিলো কিছু আলেম বিদ্বেষী লোকজন৷ তারই প্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার অনির্ধারিত এক মিটিং এ কমিটির সভাপতির নেতৃত্বে কতিপয় উশৃংখল সদস্যরা মুফতি মুফাজ্জলকে অপমান লাঞ্চিত করতে থাকেন৷ চরিত্রহীন শিক্ষক তালহাকে ফিরিয়ে আনা ও ইমামকে লাঞ্চিত করার পিছনে কলকাঠি নাড়েন স্থানীয় পৌর মেয়র ও বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এ বি এম আনিছুজ্জামান ও বি এন পি নেতা জয়নাল আবেদীন। একজন লম্পট শিক্ষক কে মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনার তাদের এই মরিয়া চেষ্টাই স্থানীয় তৌহিদী জনতা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন৷ স্থানীয় তৌহিদী জনতারা বলছেন, পৌর মেয়র আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চান। উনার এরকম কর্মকান্ড ভোটের মাঠে প্রভাব ফেলবে৷ একজন প্রভাবশালী, জনপ্রিয় আলেমকে হেনস্তার অভিযোগ প্রচার হলে উনি কোনভাবেই সাধারণ জনগনের কাছে পৌছাতে পারবেন না৷ অপরদিকে বি এন পি নেতা জয়নাল আবেদীনের ব্যাপারেও একই মত দেন সাধারন মুসল্লীরা৷ তারা মনে করেন, রাজনৈতিক পদ প্রত্যাশী ব্যক্তিরা এরকম জনবিরোধী কাজে সম্পৃক্ত থাকলে ভোটের মাঠে তারা সফল হতে পারবেন না৷

ত্রিশালের এই জামিয়াতুস সাহাবা মাদ্রাসা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন ঝামেলা চলে আসছিলো৷ মসজিদের ইমাম স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয় হওয়ায় কুচক্রীমহল সব সময় ব্যর্থ হয়৷ কিন্তু গত শনিবার তারা জোটবদ্ধ হয়ে সভাপতি আব্দুর রউফের নেতৃত্বে সদস্যা দীপক, শাহজাহান, নূর মোহাম্মদ আরোও অনেকে ইমামের উপর চড়াও হন৷ এক পর্যায়ে তারা নিরীহ ইমামকে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করার চেষ্টা করেন৷ সহ সভাপতি আতাউর রহমান শামীম তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন৷ এ বিষয়ে লাঞ্চিত ইমাম লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমি মাওলানা মুফাজ্জল হক, দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ ত্রিশাল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি। ত্রিশালের ধর্ম প্রাণ মুসল্লী একজন ইসলামের নগন্য খাদেম হিসাবে আমাকে সম্মান দিয়েছেন। কিন্তু দ্বীন শরিয়তের কথা প্রচার ও মানতে বলায় বিভিন্ন সময় আমার প্রতি কতিপয় পথভ্রষ্ট লোকজন অপপ্রচার ও অভিযোগ করে আসছিলেন। কখনোই আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমান করতে পারেন নি৷

কিন্তু একজন চরিত্রহীন, জিনাকারী শিক্ষকের পক্ষাবলম্বন করে তারা আমাকে হেনস্তা ও অপমানিত করেছেন। আমি এর বিচার আল্লাহর কাছে দিয়েছি৷ দুনিয়া ও আখিরাতের বিচার অবশ্যই তাদের প্রাপ্য। আমি মানসিকভাবে খুবই অসুস্থ এখন। স্বাভাবিক চলাফেরায় মনোনিবেশ করতে পারছি না। যারাই আমার প্রতি অবিবেচকের মতো অভিযোগ দায়ের করেছে এবং যারা আমাকে লাঞ্চিত করেছে তাদেরকেও আল্লাহ দুনিয়া ও আখিরাতে লাঞ্চিত করবে বলে আমি মনে করি। উপস্থিত সাধারণ মুসল্লীরা মসজিদ কমিটির পদত্যাগ ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।