ঢাকা ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন  ৫২’র ভাষা শহীদদের প্রতি মিরপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছেন ডিজি ডা: মো: এমদাদুল হক তালুকদার! বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা দুই সাব-রেজিস্ট্রারের বদলী উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীল হবেন দুদক কর্মকর্তারা বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে ভূমি অফিস পরিচালনা করুন: ভূমিমন্ত্রী বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা মাগুরায় মাদরাসার সভাপতির ধমকে সুপার অজ্ঞান  মাগুরায় সাকিবের পৃষ্ঠপোষকতায় মহান একুশ উপলক্ষে শহরে আলপনার উদ্যোগ 

৬০ আসনে নৌকার ‘নতুন মাঝি’!

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে অর্ধশতাধিক আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন হচ্ছে। নানা কারণে এসব আসনে দলটির প্রার্থী পরিবর্তন হবে বলে জানা গেছে দলীয় একাধিক সূত্রে।

বৃহস্পতিবার রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ৭২টি আসনে দলীয় প্রার্থী বাছাই করে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে ১০ থেকে ১২টি আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য নৌকার টিকিট পাচ্ছেন না দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। শুক্রবার খুলনা, বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগের ৮১টি আসনে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ঠিক করা হয়। এর মধ্যে ১৫ থেকে ১৭টি আসনে আসছে নতুন মুখ। শনিবার ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ১৪৭টি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাই করা হয়েছে। এই তিন বিভাগের ২৫ থেকে ৩১টি আসনের বর্তমান সংসদ সদস্যরা এবার বাদ পড়তে পারেন।

সূত্রমতে, মাগুরা-১ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখরের বদলে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, ঢাকা-১০ আসনে এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলামের পরিবর্তে চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ, ঢাকা-৬ আসনে জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদের বদলে ঢাকা দক্ষিণ সিটির সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা-১৩ আসনে সাদেক খানের স্থানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-৮ আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা রাশেদ খান মেননের স্থানে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বরিশাল-২ আসনে শাহ-ই-আলমের পরিবর্তে সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার মোহাম্মদ ইউনূস, বরিশাল-৪ আসনে সংসদ সদস্য পঙ্কজ নাথের স্থানে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, বরিশাল-৩ আসনে খালেদ হোসেন স্বপন ও বরিশাল-৬ আসনে মেজর জেনারেল (অব.) হাফিজ মল্লিক, ঢাকা-৭ আসনে হাজী সেলিমের পরিবর্তে ছেলে ইরফান সোলায়মান সেলিম, যশোর-২ আসনে নাসির উদ্দিনের স্থানে তৌহিদুজ্জামান তুহিন, ঢাকা-১১ আসনে রহমতুল্লাহর পরিবর্তে ওয়াকিল উদ্দিন, ঢাকা-৪ জাতীয় পার্টির সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার বদলে সানজিদা খানম, ফরিদপুর-৪ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী জাফর উল্লাহ, সিলেট-৫ আসনে হাফিজ আহমদ মজুমদারের বদলে মাসুক উদ্দিন, সিলেট-২ গণফোরামের মোকাব্বির খানের স্থানে শফিকুর রহমান-কে প্রার্থী করা হয়েছে।

ঢাকা-১৪ আসনে আগা খান মিন্টুর পরিবর্তে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, চট্টগ্রাম-১ আসনে সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেনের স্থলে তার ছেলে মাহবুবুর রহমান রুহেল, চট্টগ্রাম-৪ আসনে দিদারুল আলমের বদলে এস এম আল মামুন, চট্টগ্রাম-৫ আসনে জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদের আসনে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ ছালাম নৌকার টিকিট পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

চাঁদপুর-২ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য নুরুল আমিন রুহুলের পরিবর্তে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ঢাকা-৫ আসনে মনিরুল ইসলাম মনুর বদলে সজল মোল্লা, কক্সবাজার-১ জাফর আলমের বদলে সালাহউদ্দিন আহমেদ, ফরিদপুর-১ আসনে মঞ্জুর হোসেন বুলবুলের বদলে আব্দুর রহমান, ফরিদপুর-৩ খন্দকার মোশাররফ হোসেনের পরিবর্তে শামীম হক, সুনামগঞ্জ-১ আসনে মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বদলে রনজিত সরকার, সুনামগঞ্জ-২ জয়া সেন গুপ্তের বদলে চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সুনামগঞ্জ-৪ জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমানের স্থানে মোহাম্মদ সাদিক, চাঁদপুর-১ মহিউদ্দিন খান আলমগীরের পরিবর্তে সেলিম মাহমুদ, জামালপুর-৪ মুরাদ হাসানের স্থানে মারুফা আক্তার পপি, জামালপুর-৫ মোজাফফর হোসেনের বদলে আবুল কালাম আজাদ, নেত্রকোনা-১ মানু মজুমদারের বদলে মোস্তাক আহমেদ রুহি, নেত্রকোনা-৫ ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের পরিবর্তে আহমদ হোসেন, রংপুর-৫ আসনে এইচ এম আশেকুর রহমানের বদলে তার ছেলে রাশেক রহমানকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে জানা গেছে।

এ ছাড়া ফরিদপুর, ময়মনসিংহ, জামালপুর, মাগুরা, শেরপুর, বরিশাল, বরগুনা, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, নেত্রকোনা, রাজশাহী, দিনাজপুর, জয়পুরহাট, নওগাঁ, নাটোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনাসহ আরও কয়েকটি জেলায় এক বা একাধিক আসনে প্রার্থী পরিবর্তন করা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া জানিয়েছেন, আগামীকাল বিকাল ৪টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করবেন  আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের একজন সদস্য বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ৩০০ আসনে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হলেও ঘোষণার আগ পর্যন্ত কারা বাদ যাচ্ছেন আর কারা নতুন করে যুক্ত হচ্ছেন, সেটি নিশ্চিত করে বলা যাবে না। অতীতে চূড়ান্ত করা তালিকা ঘোষণার ঠিক আগমুহূর্তেও প্রার্থী পরিবর্তন করার নজির রয়েছে।

শুক্রবার ওবায়দুল কাদের বলেন, কৌশলগত কারণে কোন কোন বিভাগের মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়েছে, তা আর প্রকাশ করা হচ্ছে না। আমরা মনোনয়নের ব্যাপারটা সুনির্দিষ্ট করে এখনও বলছি না। কারণ, এর মধ্যে আমরা যেসব প্রার্থী দিয়েছি, সেসব মনোনয়নে ভুলত্রুটিও থাকতে পারে। সেটাও সংশোধনের একটা সুযোগ রেখেছি। এ কারণে আমরা ঠিক করেছি—ভিন্নভাবে, অর্থাৎ জেলাওয়ারী বা বিভাগওয়ারী প্রার্থিতা ঘোষণা করবো না। একসঙ্গে ৩০০ আসনের প্রার্থিতা ঘোষণা করতে চাই।’

এদিকে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা সবার সঙ্গে মতবিনিময় সভা করবেন দলটির সভাপতি ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা। রবিবার (২৬ নভেম্বর) সকাল ১০টায় তার সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত হবে সভাটি। সভা শেষ হওয়ার পর আওয়ামী লীগের দফতর থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ৩০০ আসেন নৌকার প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে।

প্রার্থী বাছাইয়ের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী জাফর উল্লাহ বলেন, এবারের নির্বাচনে জেতে আসার মতো ভালো প্রার্থী দেওয়ার কথা বলেছেন নেত্রী শেখ হাসিনা। এলাকায় জনপ্রিয়, নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকে আমরা বেছে নিতে চাই।

আওয়ামী লীগ এবার ৩০০ আসনেই দলীয় প্রার্থী দেওয়ার কথা বললেও একাধিক সূত্র বলছে, ১৪ দলের শরিক দলকে সমঝোতার ভিত্তিতে কিছু আসনে ছাড় দেওয়া হলেও তারা নৌকা প্রতীকে ভোট করবেন। বর্তমানে জোট শরিকদের ৮ জন সংসদ সদস্য থাকলেও এবার এই সংখ্যা সামান্য বাড়তে পারে। ছাড়ের তালিকায় নতুন করে যুক্ত হতে পারে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া কল্যাণ পার্টিসহ আরও দুই-তিনটি দলের নাম। এসব দলকে এক বা একাধিক আসনে ছাড় দিতে পারে আওয়ামী লীগ।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) আওয়ামী লীগের শরিকদের মনোনয়নের বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়ে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘শরিক সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত আমাদের এখনও হয়নি। আমরা এখনও ঠিক করিনি শরিকদের আসলে আমাদের প্রয়োজন আছে কিনা। জোটের বিপরীতে জোট, আমাদের প্রতিপক্ষ যদি বড় জোট করতো, তাহলে তার বিপরীতে আমাদের জোট হতো। তা ছাড়া আমরা কেন অহেতুক জোট করতে যাবো? প্রয়োজন না থাকলে তো জোট করবো না। আর জোট করবো যাদের নিয়ে, তাদের তো মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা থাকতে হবে।’

একাদশ জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগের ২৬২ জন সংসদ সদস্য আছেন। ওই নির্বাচনে দলটি ২৫৮টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল।

ট্যাগস

মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

৬০ আসনে নৌকার ‘নতুন মাঝি’!

আপডেট টাইম : ০৮:১২:৫৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে অর্ধশতাধিক আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন হচ্ছে। নানা কারণে এসব আসনে দলটির প্রার্থী পরিবর্তন হবে বলে জানা গেছে দলীয় একাধিক সূত্রে।

বৃহস্পতিবার রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ৭২টি আসনে দলীয় প্রার্থী বাছাই করে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে ১০ থেকে ১২টি আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য নৌকার টিকিট পাচ্ছেন না দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। শুক্রবার খুলনা, বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগের ৮১টি আসনে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ঠিক করা হয়। এর মধ্যে ১৫ থেকে ১৭টি আসনে আসছে নতুন মুখ। শনিবার ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ১৪৭টি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাই করা হয়েছে। এই তিন বিভাগের ২৫ থেকে ৩১টি আসনের বর্তমান সংসদ সদস্যরা এবার বাদ পড়তে পারেন।

সূত্রমতে, মাগুরা-১ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখরের বদলে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, ঢাকা-১০ আসনে এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলামের পরিবর্তে চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ, ঢাকা-৬ আসনে জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদের বদলে ঢাকা দক্ষিণ সিটির সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা-১৩ আসনে সাদেক খানের স্থানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-৮ আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা রাশেদ খান মেননের স্থানে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বরিশাল-২ আসনে শাহ-ই-আলমের পরিবর্তে সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার মোহাম্মদ ইউনূস, বরিশাল-৪ আসনে সংসদ সদস্য পঙ্কজ নাথের স্থানে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, বরিশাল-৩ আসনে খালেদ হোসেন স্বপন ও বরিশাল-৬ আসনে মেজর জেনারেল (অব.) হাফিজ মল্লিক, ঢাকা-৭ আসনে হাজী সেলিমের পরিবর্তে ছেলে ইরফান সোলায়মান সেলিম, যশোর-২ আসনে নাসির উদ্দিনের স্থানে তৌহিদুজ্জামান তুহিন, ঢাকা-১১ আসনে রহমতুল্লাহর পরিবর্তে ওয়াকিল উদ্দিন, ঢাকা-৪ জাতীয় পার্টির সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার বদলে সানজিদা খানম, ফরিদপুর-৪ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী জাফর উল্লাহ, সিলেট-৫ আসনে হাফিজ আহমদ মজুমদারের বদলে মাসুক উদ্দিন, সিলেট-২ গণফোরামের মোকাব্বির খানের স্থানে শফিকুর রহমান-কে প্রার্থী করা হয়েছে।

ঢাকা-১৪ আসনে আগা খান মিন্টুর পরিবর্তে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, চট্টগ্রাম-১ আসনে সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেনের স্থলে তার ছেলে মাহবুবুর রহমান রুহেল, চট্টগ্রাম-৪ আসনে দিদারুল আলমের বদলে এস এম আল মামুন, চট্টগ্রাম-৫ আসনে জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদের আসনে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ ছালাম নৌকার টিকিট পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

চাঁদপুর-২ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য নুরুল আমিন রুহুলের পরিবর্তে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ঢাকা-৫ আসনে মনিরুল ইসলাম মনুর বদলে সজল মোল্লা, কক্সবাজার-১ জাফর আলমের বদলে সালাহউদ্দিন আহমেদ, ফরিদপুর-১ আসনে মঞ্জুর হোসেন বুলবুলের বদলে আব্দুর রহমান, ফরিদপুর-৩ খন্দকার মোশাররফ হোসেনের পরিবর্তে শামীম হক, সুনামগঞ্জ-১ আসনে মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বদলে রনজিত সরকার, সুনামগঞ্জ-২ জয়া সেন গুপ্তের বদলে চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সুনামগঞ্জ-৪ জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমানের স্থানে মোহাম্মদ সাদিক, চাঁদপুর-১ মহিউদ্দিন খান আলমগীরের পরিবর্তে সেলিম মাহমুদ, জামালপুর-৪ মুরাদ হাসানের স্থানে মারুফা আক্তার পপি, জামালপুর-৫ মোজাফফর হোসেনের বদলে আবুল কালাম আজাদ, নেত্রকোনা-১ মানু মজুমদারের বদলে মোস্তাক আহমেদ রুহি, নেত্রকোনা-৫ ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের পরিবর্তে আহমদ হোসেন, রংপুর-৫ আসনে এইচ এম আশেকুর রহমানের বদলে তার ছেলে রাশেক রহমানকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে জানা গেছে।

এ ছাড়া ফরিদপুর, ময়মনসিংহ, জামালপুর, মাগুরা, শেরপুর, বরিশাল, বরগুনা, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, নেত্রকোনা, রাজশাহী, দিনাজপুর, জয়পুরহাট, নওগাঁ, নাটোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনাসহ আরও কয়েকটি জেলায় এক বা একাধিক আসনে প্রার্থী পরিবর্তন করা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া জানিয়েছেন, আগামীকাল বিকাল ৪টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করবেন  আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের একজন সদস্য বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ৩০০ আসনে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হলেও ঘোষণার আগ পর্যন্ত কারা বাদ যাচ্ছেন আর কারা নতুন করে যুক্ত হচ্ছেন, সেটি নিশ্চিত করে বলা যাবে না। অতীতে চূড়ান্ত করা তালিকা ঘোষণার ঠিক আগমুহূর্তেও প্রার্থী পরিবর্তন করার নজির রয়েছে।

শুক্রবার ওবায়দুল কাদের বলেন, কৌশলগত কারণে কোন কোন বিভাগের মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়েছে, তা আর প্রকাশ করা হচ্ছে না। আমরা মনোনয়নের ব্যাপারটা সুনির্দিষ্ট করে এখনও বলছি না। কারণ, এর মধ্যে আমরা যেসব প্রার্থী দিয়েছি, সেসব মনোনয়নে ভুলত্রুটিও থাকতে পারে। সেটাও সংশোধনের একটা সুযোগ রেখেছি। এ কারণে আমরা ঠিক করেছি—ভিন্নভাবে, অর্থাৎ জেলাওয়ারী বা বিভাগওয়ারী প্রার্থিতা ঘোষণা করবো না। একসঙ্গে ৩০০ আসনের প্রার্থিতা ঘোষণা করতে চাই।’

এদিকে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা সবার সঙ্গে মতবিনিময় সভা করবেন দলটির সভাপতি ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা। রবিবার (২৬ নভেম্বর) সকাল ১০টায় তার সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত হবে সভাটি। সভা শেষ হওয়ার পর আওয়ামী লীগের দফতর থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ৩০০ আসেন নৌকার প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে।

প্রার্থী বাছাইয়ের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী জাফর উল্লাহ বলেন, এবারের নির্বাচনে জেতে আসার মতো ভালো প্রার্থী দেওয়ার কথা বলেছেন নেত্রী শেখ হাসিনা। এলাকায় জনপ্রিয়, নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকে আমরা বেছে নিতে চাই।

আওয়ামী লীগ এবার ৩০০ আসনেই দলীয় প্রার্থী দেওয়ার কথা বললেও একাধিক সূত্র বলছে, ১৪ দলের শরিক দলকে সমঝোতার ভিত্তিতে কিছু আসনে ছাড় দেওয়া হলেও তারা নৌকা প্রতীকে ভোট করবেন। বর্তমানে জোট শরিকদের ৮ জন সংসদ সদস্য থাকলেও এবার এই সংখ্যা সামান্য বাড়তে পারে। ছাড়ের তালিকায় নতুন করে যুক্ত হতে পারে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া কল্যাণ পার্টিসহ আরও দুই-তিনটি দলের নাম। এসব দলকে এক বা একাধিক আসনে ছাড় দিতে পারে আওয়ামী লীগ।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) আওয়ামী লীগের শরিকদের মনোনয়নের বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়ে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘শরিক সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত আমাদের এখনও হয়নি। আমরা এখনও ঠিক করিনি শরিকদের আসলে আমাদের প্রয়োজন আছে কিনা। জোটের বিপরীতে জোট, আমাদের প্রতিপক্ষ যদি বড় জোট করতো, তাহলে তার বিপরীতে আমাদের জোট হতো। তা ছাড়া আমরা কেন অহেতুক জোট করতে যাবো? প্রয়োজন না থাকলে তো জোট করবো না। আর জোট করবো যাদের নিয়ে, তাদের তো মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা থাকতে হবে।’

একাদশ জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগের ২৬২ জন সংসদ সদস্য আছেন। ওই নির্বাচনে দলটি ২৫৮টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল।