ঢাকা ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন  ৫২’র ভাষা শহীদদের প্রতি মিরপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছেন ডিজি ডা: মো: এমদাদুল হক তালুকদার! বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা দুই সাব-রেজিস্ট্রারের বদলী উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীল হবেন দুদক কর্মকর্তারা বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে ভূমি অফিস পরিচালনা করুন: ভূমিমন্ত্রী বাসাবো এলাকায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান; ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা মাগুরায় মাদরাসার সভাপতির ধমকে সুপার অজ্ঞান  মাগুরায় সাকিবের পৃষ্ঠপোষকতায় মহান একুশ উপলক্ষে শহরে আলপনার উদ্যোগ 

শাহজালালে সাড়ে ৩ কেজি স্বর্ণসহ আটক ১

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে প্রায় সাড়ে ৩ কেজি ওজনের ২৮টি স্বর্ণের বারসহ এম মাসুদ ইমাম নামে এক যাত্রীকে আটক করেছে বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজ। আটক মাসুদ দুবাই থেকে ছেড়ে আসা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটের (ইকেএস৮৪) যাত্রী ছিলেন।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ফারহানা বেগম এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এতে বলা হয়, মাসুদ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাধ্যমে স্বর্ণ চোরাচালানের কাজে সম্পৃক্ত থাকতে পারে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার দেহ তল্লাশি করে একটি চামড়ার মানিব্যাগ পাওয়া যায়। পরে ওই মানিব্যাগের ভেতরে একটি বড় আকারের স্বর্ণের কয়েন পাওয়া যায়, যা মাসুদ নিজের বলে স্বীকার করেন। এছাড়াও তল্লাশিতে একাধিক স্বর্ণের বারসহ তার কাছ থেকে আরও ২টি মানিব্যাগ উদ্ধার করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মোট উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন তিন হাজার চারশত আটানব্বই গ্রাম। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৩ কোটি ১৪ লাখ ৮২ হাজার টাকা। স্বর্ণের বারগুলো কাস্টম হাউস শুল্ক গুদামে জমা দেয়ার কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এর আগে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩ কেজি ৮১০ গ্রাম স্বর্ণসহ এক যাত্রীকে আটক করা হয়েছিল।

জানা গেছে, ওমানের মাসকাট থেকে ঢাকায় আগত ওমান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বুধবার (২৪ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে তিনটায় অবতরণ করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে সতর্ক অবস্থান নেন।

উড়োজাহাজটি অবতরণ করার পর পরই সন্দেহভাজন যাত্রী হাফিজ হাসানের পরিচয় চিহ্নিত করা হয়। এ সময় তল্লাশি করে তার সামনের সিটের ব্যাক পকেটে সাদা স্কচ টেপে মোড়ানো ৩২টি স্বর্ণবার উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে তার দেহ তল্লাশি করে আরো ৯৮ গ্রাম স্বর্ণালংকার পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজার মূল্য তিন কোটি উনত্রিশ লাখ টাকা।

উল্লেখ্য, অনেকদিন যাবত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক স্বর্ণ চোরাচালানিরা রুট হিসেবে ব্যবহার করছে। তবে দেশের শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের প্রতিরোধ করতে সচেতন আছে বলে জানিয়েছেন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

ট্যাগস

মির্জাগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও  শহীদ  দিবসে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির শ্রদ্ধা নিবেদন 

শাহজালালে সাড়ে ৩ কেজি স্বর্ণসহ আটক ১

আপডেট টাইম : ০৭:৪০:২২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে প্রায় সাড়ে ৩ কেজি ওজনের ২৮টি স্বর্ণের বারসহ এম মাসুদ ইমাম নামে এক যাত্রীকে আটক করেছে বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজ। আটক মাসুদ দুবাই থেকে ছেড়ে আসা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটের (ইকেএস৮৪) যাত্রী ছিলেন।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ফারহানা বেগম এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এতে বলা হয়, মাসুদ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাধ্যমে স্বর্ণ চোরাচালানের কাজে সম্পৃক্ত থাকতে পারে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার দেহ তল্লাশি করে একটি চামড়ার মানিব্যাগ পাওয়া যায়। পরে ওই মানিব্যাগের ভেতরে একটি বড় আকারের স্বর্ণের কয়েন পাওয়া যায়, যা মাসুদ নিজের বলে স্বীকার করেন। এছাড়াও তল্লাশিতে একাধিক স্বর্ণের বারসহ তার কাছ থেকে আরও ২টি মানিব্যাগ উদ্ধার করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মোট উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন তিন হাজার চারশত আটানব্বই গ্রাম। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৩ কোটি ১৪ লাখ ৮২ হাজার টাকা। স্বর্ণের বারগুলো কাস্টম হাউস শুল্ক গুদামে জমা দেয়ার কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এর আগে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩ কেজি ৮১০ গ্রাম স্বর্ণসহ এক যাত্রীকে আটক করা হয়েছিল।

জানা গেছে, ওমানের মাসকাট থেকে ঢাকায় আগত ওমান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বুধবার (২৪ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে তিনটায় অবতরণ করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে সতর্ক অবস্থান নেন।

উড়োজাহাজটি অবতরণ করার পর পরই সন্দেহভাজন যাত্রী হাফিজ হাসানের পরিচয় চিহ্নিত করা হয়। এ সময় তল্লাশি করে তার সামনের সিটের ব্যাক পকেটে সাদা স্কচ টেপে মোড়ানো ৩২টি স্বর্ণবার উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে তার দেহ তল্লাশি করে আরো ৯৮ গ্রাম স্বর্ণালংকার পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজার মূল্য তিন কোটি উনত্রিশ লাখ টাকা।

উল্লেখ্য, অনেকদিন যাবত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক স্বর্ণ চোরাচালানিরা রুট হিসেবে ব্যবহার করছে। তবে দেশের শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের প্রতিরোধ করতে সচেতন আছে বলে জানিয়েছেন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।