ঢাকা ০২:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত ৫ বছরের অধিক প্রেষনে দায়িত্ব পালন করছেন চীফ ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল কবীর! বিআইডব্লিউটিএর অতি: পরিচালক আরিফ উদ্দিনের সম্পদের পাহাড়! শাহআলীতে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যাকারি পলাতক স্বামী গ্রেফতার  অতি:পরিচালক আরিফ উদ্দিন এখন বিআইডব্লিউটিএ‘র অঘোষিত “রাজা”! সাভারে এক ইউপি চেয়ারম্যানের সম্পদের পাহাড়! সিরাজদিখানে মঈনুল হাসান নাহিদকে বিকল্প ধরার সমর্থন মির্জাগঞ্জের ইউ,পি সচিব পরকীয়া প্রেমিকার হত্যাকাণ্ডে পুলিশ হেফাজতে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় মানুষের ভালবাসায় আমি মুগ্ধ: চেয়ারম্যান প্রার্থী পলাশ মানবতার আড়ালে ভয়ংকর ফয়সাল বাহিনী, পিস্তল ঠেকিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

পে-অর্ডারের মাধ্যমে কোটি টাকা ঘুস গ্রহন: বিআইডব্লিটিএর ৪ প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

রোস্তম মল্লিক :

পে-অর্ডারের মাধ্যমে কোটি টাকার ওপরে ঘুস গ্রহনের দায়ে বিআইডব্লিউটিএর ৪ প্রকৌশলীর নামে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অভিযুক্ত ৪ প্রকৌশলী হলেন: ড্রেজার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক, নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ফরহাদ উজ্জামান। তাদেরস্ত্রীসহ মোট ৮ জনের নামে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুদক সুত্রে জানাগেছে, প্রায় ১ কোটি ৬৫ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা পে অর্ডারের মাধ্যমে ঘুস নেওয়ার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ১৭। ধারা দ:বি: ১৬১/১৬৫(৪) সহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২)। আসামীরা হলেন: ড্রেজার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ও তার স্ত্রী ফজিলা খাতুন, নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আফরোজা খানম, নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী শারমিন ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ফরহাদ উজ্জামান ও তার স্ত্রী ফেরদৌস জাহান। দুদক সুত্র জানায়,বিআইডব্লিউটিএর আরিচা,রাজশাহী,গোদাগাড়ি,ভোলাহাট নদী বন্দর প্রকল্পের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বেসিক ড্রেজিং কোম্পানীর কাছ থেকে তারা নিজেরা এবং নিজেদের স্ত্রী ও শ^াশুড়ীর নামের ব্যাংক হিসাবে পেঅর্ডারের মাধ্যমে মোট ১ কোটি ২১ লক্ষ ৫ হাজার ১৩১ টাকা ঘুস গ্রহন করেন। এছাড়া দুদকের মামলার তথ্য গোপন করে ফরহাদুজ্জামান অতি: প্রধান প্রকৌশলী পদে পদোন্নতি নিয়েছেন। জহিরুল ইসলাম দুদকের মামলা তথ্য গোপন করে ২ দফা পদোন্নতি নিয়েছেন। আবু বকর সিদ্দিকও উপ সহকারী প্রকৌশলী হতে ২ দফা পদোন্নতি নিয়ে কর্মরত রয়েছেন। এরা বিআইডব্লিউটিএর পদোন্নতি কমিটিকে প্রায় কোটি টাকা নজরানা দিয়ে আলোচ্চ পদোন্নতি বাগিয়ে নিয়েছেন। প্রসঙ্গত ২০০৮ সালের জুন মাসের ৪ তারিখে বেসিক ড্রেজিং কোম্পানীর সহকারী ব্যবস্থাপক খান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর এই মামলাটি দায়ের করেন।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত

পে-অর্ডারের মাধ্যমে কোটি টাকা ঘুস গ্রহন: বিআইডব্লিটিএর ৪ প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

আপডেট টাইম : ১২:১৩:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

রোস্তম মল্লিক :

পে-অর্ডারের মাধ্যমে কোটি টাকার ওপরে ঘুস গ্রহনের দায়ে বিআইডব্লিউটিএর ৪ প্রকৌশলীর নামে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অভিযুক্ত ৪ প্রকৌশলী হলেন: ড্রেজার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক, নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ফরহাদ উজ্জামান। তাদেরস্ত্রীসহ মোট ৮ জনের নামে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুদক সুত্রে জানাগেছে, প্রায় ১ কোটি ৬৫ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা পে অর্ডারের মাধ্যমে ঘুস নেওয়ার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ১৭। ধারা দ:বি: ১৬১/১৬৫(৪) সহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২)। আসামীরা হলেন: ড্রেজার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ও তার স্ত্রী ফজিলা খাতুন, নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আফরোজা খানম, নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী শারমিন ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ফরহাদ উজ্জামান ও তার স্ত্রী ফেরদৌস জাহান। দুদক সুত্র জানায়,বিআইডব্লিউটিএর আরিচা,রাজশাহী,গোদাগাড়ি,ভোলাহাট নদী বন্দর প্রকল্পের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বেসিক ড্রেজিং কোম্পানীর কাছ থেকে তারা নিজেরা এবং নিজেদের স্ত্রী ও শ^াশুড়ীর নামের ব্যাংক হিসাবে পেঅর্ডারের মাধ্যমে মোট ১ কোটি ২১ লক্ষ ৫ হাজার ১৩১ টাকা ঘুস গ্রহন করেন। এছাড়া দুদকের মামলার তথ্য গোপন করে ফরহাদুজ্জামান অতি: প্রধান প্রকৌশলী পদে পদোন্নতি নিয়েছেন। জহিরুল ইসলাম দুদকের মামলা তথ্য গোপন করে ২ দফা পদোন্নতি নিয়েছেন। আবু বকর সিদ্দিকও উপ সহকারী প্রকৌশলী হতে ২ দফা পদোন্নতি নিয়ে কর্মরত রয়েছেন। এরা বিআইডব্লিউটিএর পদোন্নতি কমিটিকে প্রায় কোটি টাকা নজরানা দিয়ে আলোচ্চ পদোন্নতি বাগিয়ে নিয়েছেন। প্রসঙ্গত ২০০৮ সালের জুন মাসের ৪ তারিখে বেসিক ড্রেজিং কোম্পানীর সহকারী ব্যবস্থাপক খান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর এই মামলাটি দায়ের করেন।